বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে রাখা স্বর্ণ পুরোপুরি নিরাপদে আছে।কোন হেরফের হয়নি-অর্থ প্রতিমন্ত্রী

বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে রাখা স্বর্ণ পুরোপুরি নিরাপদে আছে। বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।স্বর্ণে অনিয়মের যে অভিযোগ উঠেছে সেটা সঠিক নয় বলে জানিয়েছেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান।বুধবার (১৮ জুলাই) সচিবালয়ে তার নিজ দফতরে এক জরুরি বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।এক প্রশ্নের জবাবে এম এ মান্নান বলেন, ‘ভল্ট থেকে স্বর্ণ বাইরে যাওয়ার সম্ভাবনা মোটেও নেই। ছয় স্তরের নিরাপত্তাবলয় পেরিয়ে সেখানে যেতে হয়। এমনকি বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী গভর্নর, তিনিও ভল্টে যেতে পারেন না সিস্টেমের বাইরে। দু-তিন জায়গা থেকে ক্লিয়ারেন্স নিয়ে যেতে হয়। আর আমাদের তো প্রশ্নই আসে না। ফলে আপনারা নিশ্চিত থাকতে পারেন যে কিছু বাইরে যায়নি।’
‘ইংলিশ-বাংলা করণিক ভুলের কারণে এ রকমটা হতে পারে’ এমনটা মন্তব্য করে অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘তবে আমরা বিষয়টা ছোট করে দেখছি না। আমি ছোট করে দেখছি না। সামান্য ফাঁক দিয়েও বড় ঘটনা ঘটে যায়।’ তিনি আরো বলেন, ‘যাঁরা এসেছিলেন, তাঁদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। ফিরে গিয়ে তাঁরা আবার বসবেন। আবার আলোচনা হবে।’ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা বিষয়টি পর্যালোচনা করছি। আরও পর্যালোচনা করে দেখব। যদি কারও কোনো গাফিলতি থাকে তাহলে নিশ্চই তার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, এনবিআর সদস্য কালিপ্রদ, অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংকিং বিভাগের সিনিয়র সচিব ইনুছুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব ফজলুর রহমান, শুল্প গোয়েন্দা অধিদফতরের মহাপরিচালক সহিদুল ইসলাম।সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে রক্ষিত স্বর্ণের বিষয়ে তদন্ত করে বিভিন্ন অনিয়মের প্রমাণ পায় শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। তবে গতকাল সংবাদ সম্মেলন ডেকে বিষয়টি অস্বীকার করে বাংলাদেশ ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানায়, হাইকোর্ট থেকে আদেশ পেলেই আনবিক শক্তি কমিশনের মাধ্যমে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে স্বর্ণের পরিমাণ জানানো যাবে।
শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের দাবি, ২০১৭ এর জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত গচ্ছিত ৯৬৩ কেজি স্বর্ণ যাচাই করে দেখা যায় ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম ওজনের কয়েকটি স্বর্ণালঙ্কারে ৮০ শতাংশের বদলে স্বর্ণ রয়েছে ৪৬ শতাংশ। এতে সরকারের ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ৩ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্ট থেকে স্বর্ণ গায়েবের অভিযোগ সত্য নয়। বরং স্বর্ণের ওজন ও মান নিয়ে শুল্ক গোয়েন্দার প্রতিবেদনের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বিকেলে মতিঝিলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। তবে শুল্ক গোয়েন্দার দাবি, সব রকম নিয়ম মেনেই তদন্ত করা হয়েছে।
ঢাকা,বুধবার,১৮ মে , এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

সর্বশেষ আপডেট



» রাজনৈতিক কারণে ব্যারিস্টার মইনুলকে ধরা হয়নি।সুনির্দিষ্ট মামলার প্রেক্ষিতে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে

» ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মালিকানাধীন ফার্মাসিউটিক্যালস ও গণস্বাস্থ্য হাসপাতালকে ১৫ লাখ টাকা জরিমানা

» ওষুধের এক্সপায়ার ডেট ২০১৩, বিক্রি হচ্ছে ২০১৮ সালেও দুই ফার্মেসিকে এক লাখ টাকা জরিমানা

» দুর্নীতিবাজ ও যুদ্ধাপরাধীদের রাজনীতির মাঠে পুনর্বাসনের জন্যই ড. কামাল হোসেন বিএনপির সঙ্গে ঐক্য গড়েছেন

» ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের ফোনালাপের ফাঁস করা অডিও ক্লিপ আমরা বিশ্বাস করি না

» মোবাইলের আইএমইআই পরিবর্তন করে হত্যা, মুক্তিপণ,অপহরণ অপরাধের সাথে জড়িত চক্রের সদস্য ১৫ আটক

» ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ

» আওয়ামী লীগের যৌথসভার পর নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভার বিষয়ে সিদ্ধান্ত

» খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধি চেয়ে করা আবেদনের ওপর দুদক এবং রাষ্ট্রপক্ষের শুনানি শেষ আদেশ বুধবার

» যশোরের নওয়াপাড়ায় ট্রাকের সঙ্গে ট্রেনের সংঘর্ষ

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে রাখা স্বর্ণ পুরোপুরি নিরাপদে আছে।কোন হেরফের হয়নি-অর্থ প্রতিমন্ত্রী

বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে রাখা স্বর্ণ পুরোপুরি নিরাপদে আছে। বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।স্বর্ণে অনিয়মের যে অভিযোগ উঠেছে সেটা সঠিক নয় বলে জানিয়েছেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান।বুধবার (১৮ জুলাই) সচিবালয়ে তার নিজ দফতরে এক জরুরি বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।এক প্রশ্নের জবাবে এম এ মান্নান বলেন, ‘ভল্ট থেকে স্বর্ণ বাইরে যাওয়ার সম্ভাবনা মোটেও নেই। ছয় স্তরের নিরাপত্তাবলয় পেরিয়ে সেখানে যেতে হয়। এমনকি বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী গভর্নর, তিনিও ভল্টে যেতে পারেন না সিস্টেমের বাইরে। দু-তিন জায়গা থেকে ক্লিয়ারেন্স নিয়ে যেতে হয়। আর আমাদের তো প্রশ্নই আসে না। ফলে আপনারা নিশ্চিত থাকতে পারেন যে কিছু বাইরে যায়নি।’
‘ইংলিশ-বাংলা করণিক ভুলের কারণে এ রকমটা হতে পারে’ এমনটা মন্তব্য করে অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘তবে আমরা বিষয়টা ছোট করে দেখছি না। আমি ছোট করে দেখছি না। সামান্য ফাঁক দিয়েও বড় ঘটনা ঘটে যায়।’ তিনি আরো বলেন, ‘যাঁরা এসেছিলেন, তাঁদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। ফিরে গিয়ে তাঁরা আবার বসবেন। আবার আলোচনা হবে।’ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা বিষয়টি পর্যালোচনা করছি। আরও পর্যালোচনা করে দেখব। যদি কারও কোনো গাফিলতি থাকে তাহলে নিশ্চই তার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, এনবিআর সদস্য কালিপ্রদ, অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংকিং বিভাগের সিনিয়র সচিব ইনুছুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব ফজলুর রহমান, শুল্প গোয়েন্দা অধিদফতরের মহাপরিচালক সহিদুল ইসলাম।সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে রক্ষিত স্বর্ণের বিষয়ে তদন্ত করে বিভিন্ন অনিয়মের প্রমাণ পায় শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। তবে গতকাল সংবাদ সম্মেলন ডেকে বিষয়টি অস্বীকার করে বাংলাদেশ ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানায়, হাইকোর্ট থেকে আদেশ পেলেই আনবিক শক্তি কমিশনের মাধ্যমে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে স্বর্ণের পরিমাণ জানানো যাবে।
শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের দাবি, ২০১৭ এর জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত গচ্ছিত ৯৬৩ কেজি স্বর্ণ যাচাই করে দেখা যায় ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম ওজনের কয়েকটি স্বর্ণালঙ্কারে ৮০ শতাংশের বদলে স্বর্ণ রয়েছে ৪৬ শতাংশ। এতে সরকারের ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ৩ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্ট থেকে স্বর্ণ গায়েবের অভিযোগ সত্য নয়। বরং স্বর্ণের ওজন ও মান নিয়ে শুল্ক গোয়েন্দার প্রতিবেদনের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বিকেলে মতিঝিলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। তবে শুল্ক গোয়েন্দার দাবি, সব রকম নিয়ম মেনেই তদন্ত করা হয়েছে।
ঢাকা,বুধবার,১৮ মে , এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Design & Developed BY PopularITLimited