যখন তখন যাকে তাকে গ্রেপ্তার করবেন? স্বাধীন দেশে এটা চলতে পারে না- ড. কামাল হোসেন

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দির মুক্তি দাবি করে ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘অবিলম্বে তাঁদের মুক্তি দিন। অন্যথায় আপনাদের কঠিন জবাব দিতে হবে বলে জানান,জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন।আজ মঙ্গলবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত জনসভায় এসব কথা বলেন ড. কামাল হোসেন। ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘আপনারা পাড়ায় পাড়ায়, মহল্লায় মহল্লায়, জেলায় জেলায় দাঁড়িয়ে যান। দেশ আবার স্বাধীন হবে। জনগণ আবার তাদের মালিকানা ফেরত পাবে।’
ড. কামাল বলেন, ‘এ দেশে যা হচ্ছে তা মেনে নেওয়া যায় না। যখন তখন যাকে তাকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, আমি আজকের জনসভা থেকে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করছি। তাকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।’
ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘যখন তখন যাকে তাকে গ্রেপ্তার করবেন? স্বাধীন দেশে এটা চলতে পারে না। আর ভোটার বিহীন সরকার তো আরো পারে না। নির্বাচিত সরকার হলেও এটি পারে না। এটি সংবিধান সম্মত নয়।’
সরকারের উদ্দেশে ড. কামাল বলেন, ‘রাস্তাঘাট বন্ধ করে, বাস লঞ্চ বন্ধ করে জনগণকে নিষ্ক্রিয় করা যাবে না। আজকের জনসভা তারই প্রমাণ। জনগণ তাদের দাবি আদায়ে ঐক্যবদ্ধ। মনে রাখবেন ইতিহাস প্রমাণ কোনো বাধা বিপত্তি এ দেশের জনগণ কখনো মেনে নেয়নি।’ড. কামাল আরো বলেন, ‘আমাদের সবাইকে ভোট কেন্দ্রের পাহারাদার হতে হবে। ভোটের পাহারাদার হলে স্বাধীনতার পাহারাদার হওয়া যাবে। রাষ্ট্রের মালিক হিসেবে এটা আমাদের অধিকার।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। সবার ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা ছাড়া জনগণের দাবি আদায় সম্ভব হবে না। সবাই এক থাকলে আমাদের অধিকার আদায় হবেই। আমরা দেশের জনগণকে মুক্ত গণতন্ত্র দিব।’
সরকারের উদ্দেশে ড. কামাল বলেন, ‘তিন মাসের কথা বলে ভোট ছাড়াই পাঁচ বছর কাটিয়ে দিলেন। এটা ভাবতে অবাক লাগে। জনগণ জেগে উঠেছে- এবার ভোটের অধিকার নিশ্চিত হবেই হবে। গত পাঁচ বছরে প্রমাণ হয়েছে- সরকারের কথার এক পয়সারও দাম নেই।’বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজকে এই পিজি হাসপাতালে ছোট্ট একটি কক্ষে আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া অসুস্থ অবস্থায় বন্দি সময় কাটাচ্ছেন। আমি জানি না, জনগণের এই উচ্চারণ তার কানে পৌঁছাচ্ছে কিনা। আমি বিশ্বাস করি, তিনি সেখান থেকে শুনছেন এবং বলছেন, এগিয়ে যাও, গণতন্ত্রের মুক্তির জন্য এগিয়ে যাও, বিজয় নিশ্চিত করো। কারাগারে যাওয়ার আগে তিনি বলে গেছেন, আমি কারাগারে যেতে ভয় পাই না। তিনি বলেছিলেন, গণতন্ত্রকে মুক্ত করার জন্য সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করবে। জাতীয় নেতাদের আহ্বান জানাবে। আজকে আল্লাহর কাছে এই শুকরিয়া আদায় করছি, এই মঞ্চে জাতীয় নেতারা খালেদা জিয়ার মুক্তি চাচ্ছেন, জনগণের মুক্তি চাচ্ছেন।’বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে বক্তব্য দেন জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর আবদুল কাদের সিদ্দিকী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সদস্য সুলতান মোহাম্মদ মুনসুর আহমেদ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফা মোহসীন মন্টু, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও ড. আবদুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, আলতাফ হোসেন, সেলিমা রহমান, বরকত উল্লাহ বুলু, মো. শাজাহান, শামসুজ্জামান দুদু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, জয়নুল আবদীন ফারুক, হাবিবুর রহমান হাবিব, ড. সুকোমল বড়ুয়া, আবদুস সালাম, আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন প্রমুখ।
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আগামীকাল একটা ছোট সংলাপের ডাক দিয়েছে। আমরা রাজী আছি। সংলাপে বিশ্বাস করি। আমরা চাই আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে জনগণের সমস্যার সমাধান হোক, জনগণ মুক্তি পাক। কিন্তু এটা নিয়ে নাটক করলে চলবে না। আপনাকে ছেড়ে দিতে হবে, সংসদ বাতিল করতে হবে। একই সঙ্গে নির্বাচনের জন্য একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। আমরা আশা করবো, আপনাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে, জনগণের স্বার্থে ৭ দফা দাবি মেনে নেবেন।’জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেন, ‘এ লড়াই মুক্তির লড়াই, এ লড়াই গণতন্ত্রের লড়াই, এ লড়াইয়ে জিততে হবে। প্রধানমন্ত্রীকে বলতে চাই, আমরা দাবি আদায় ছাড়া ঘরে ফিরবো না। ৭ দফা দাবি মেনে নিন। তা নাহলে আপনার উপায় নেই। আর গায়েবী মামলা দেবেন না, কাউকে গ্রেফতার করবেন না, খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দিদের মুক্তি দিন। অন্যথায় খবর আছে।’তিনি বলেন, এ সরকার যদি আগামীকাল (বুধবার) সংলাপে আমাদের সাতদফা দাবি-দাওয়া মেনে না নেয়, তাহলে ৮ নভেম্বর রোড মার্চ করে ৯ তারিখ রাজশাহীতে জনসভা। পরে খুলনা, বরিশাল ও ময়মনসিংহে জনসভা করা হবে। আর নির্বাচন কমিশন যদি সমঝোতার আগে তফসিল ঘোষণা করে তাহলে নির্বাচন কমিশন অভিমুখে পদযাত্রার কর্মসূচি দেয়া হবে।
কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘আমি বিএনপিতে যোগ দেইনি। আমি ড. কামাল হোসেনের ঐক্যফ্রন্টে যোগদান করেছি। আমি বলব, যদি আপনারা জিততে চান, তাহলে জয় আপনাদের হাতে। আর যদি হারতে চান তাও আপনাদের হাতে। যদি বিজয়ী হতে চান তাহলে নির্বাচন পর্যন্ত বিএনপি ভুলে যান। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পতাকা তলে হিমান্দ্রির মতো অন্তত পক্ষে সোজা হয়ে দাঁড়ান।’
তিনি বলেন, ‘ বিএনপির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের অভিযোগ বিএনপি রাজকারের গাড়িতে বাংলাদেশের পতাকা তুলে দিয়েছে। অভিযোগ সত্য নয়। আওয়ামী লীগ প্রথম শরিষাবাড়ির নুরু মাওলানার গাড়িতে পতাকা তুলেছে। আওয়ামী লীগ রাজাকার মহিউদ্দিনের গাড়িতে পতাকা তুলেছে, আওয়ামী লীগের আশিকুর রহমানের গাড়িতে পতাকা তুলেছে। গত ৪ তারিখ প্রধানমন্ত্রী এখানে এসেছেন। আল্লামা শফি ভুলে যেতে পারেন। আমি কাদের সিদ্দিকী ভুলি নাই, শাপলার চত্বরে ইমাম-ওলামাদের কিভাবে রক্ত ঝরিয়েছে। এ রক্তের বদলা না দিলে আমরা বেঈমানে পরিণত হবো। রিঅ্যাকশন দিতে হাসিনাকে। উপায় নাই। এ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আমরা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতা এনেছিলাম, আজকে বলে যাচ্ছি, ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে আমরা এ পল্টন থেকে গণতন্ত্রকে মুক্ত করবো, খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবো।’

ঢাকা,মঙ্গলবার,০৬ নভেম্বর,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

সর্বশেষ আপডেট



» সহিংসতা ও উগ্রবাদ প্রতিরোধে সামাজিক সচেতনতা বাড়াতে হবে-সিটিটিসি প্রধান

» পুরুষ বিভাগের সেমিফাইনালে নৌ বাহিনী, বাংলাদেশ জেল, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ পুলিশ

» অবাধ সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সম্পাদকদের কাছে সবধরনের সহযোগিতা চেয়েছে ঐক্যফ্রন্ট

» প্রিন্ট মিডিয়ার সম্পাদকদের সঙ্গে রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের বৈঠক চলছে

» ঢাকার তিনটি এবং চট্টগ্রামের একটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেল ‘হাসিনা: এ ডটার’স টেল’

» নিপুণ রায়সহ ৭ জনকে ৫ দিন করে রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত

» আওয়ামী লীগ বিজয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, পল্টনের সহিংসতাকারীরা বিনা শাস্তিতে পার পাবে না -ওবায়দুল কাদের

» নরসিংদীর বাঁশগাড়িতে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহত

» রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর ধলপুর এলাকায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহত ১, দগ্ধ ৬

» বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক ও সঙ্গীতশিল্পী বেবী নাজনীনকে আটকের পর ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

যখন তখন যাকে তাকে গ্রেপ্তার করবেন? স্বাধীন দেশে এটা চলতে পারে না- ড. কামাল হোসেন

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দির মুক্তি দাবি করে ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘অবিলম্বে তাঁদের মুক্তি দিন। অন্যথায় আপনাদের কঠিন জবাব দিতে হবে বলে জানান,জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন।আজ মঙ্গলবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত জনসভায় এসব কথা বলেন ড. কামাল হোসেন। ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘আপনারা পাড়ায় পাড়ায়, মহল্লায় মহল্লায়, জেলায় জেলায় দাঁড়িয়ে যান। দেশ আবার স্বাধীন হবে। জনগণ আবার তাদের মালিকানা ফেরত পাবে।’
ড. কামাল বলেন, ‘এ দেশে যা হচ্ছে তা মেনে নেওয়া যায় না। যখন তখন যাকে তাকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, আমি আজকের জনসভা থেকে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করছি। তাকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।’
ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘যখন তখন যাকে তাকে গ্রেপ্তার করবেন? স্বাধীন দেশে এটা চলতে পারে না। আর ভোটার বিহীন সরকার তো আরো পারে না। নির্বাচিত সরকার হলেও এটি পারে না। এটি সংবিধান সম্মত নয়।’
সরকারের উদ্দেশে ড. কামাল বলেন, ‘রাস্তাঘাট বন্ধ করে, বাস লঞ্চ বন্ধ করে জনগণকে নিষ্ক্রিয় করা যাবে না। আজকের জনসভা তারই প্রমাণ। জনগণ তাদের দাবি আদায়ে ঐক্যবদ্ধ। মনে রাখবেন ইতিহাস প্রমাণ কোনো বাধা বিপত্তি এ দেশের জনগণ কখনো মেনে নেয়নি।’ড. কামাল আরো বলেন, ‘আমাদের সবাইকে ভোট কেন্দ্রের পাহারাদার হতে হবে। ভোটের পাহারাদার হলে স্বাধীনতার পাহারাদার হওয়া যাবে। রাষ্ট্রের মালিক হিসেবে এটা আমাদের অধিকার।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। সবার ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা ছাড়া জনগণের দাবি আদায় সম্ভব হবে না। সবাই এক থাকলে আমাদের অধিকার আদায় হবেই। আমরা দেশের জনগণকে মুক্ত গণতন্ত্র দিব।’
সরকারের উদ্দেশে ড. কামাল বলেন, ‘তিন মাসের কথা বলে ভোট ছাড়াই পাঁচ বছর কাটিয়ে দিলেন। এটা ভাবতে অবাক লাগে। জনগণ জেগে উঠেছে- এবার ভোটের অধিকার নিশ্চিত হবেই হবে। গত পাঁচ বছরে প্রমাণ হয়েছে- সরকারের কথার এক পয়সারও দাম নেই।’বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজকে এই পিজি হাসপাতালে ছোট্ট একটি কক্ষে আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া অসুস্থ অবস্থায় বন্দি সময় কাটাচ্ছেন। আমি জানি না, জনগণের এই উচ্চারণ তার কানে পৌঁছাচ্ছে কিনা। আমি বিশ্বাস করি, তিনি সেখান থেকে শুনছেন এবং বলছেন, এগিয়ে যাও, গণতন্ত্রের মুক্তির জন্য এগিয়ে যাও, বিজয় নিশ্চিত করো। কারাগারে যাওয়ার আগে তিনি বলে গেছেন, আমি কারাগারে যেতে ভয় পাই না। তিনি বলেছিলেন, গণতন্ত্রকে মুক্ত করার জন্য সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করবে। জাতীয় নেতাদের আহ্বান জানাবে। আজকে আল্লাহর কাছে এই শুকরিয়া আদায় করছি, এই মঞ্চে জাতীয় নেতারা খালেদা জিয়ার মুক্তি চাচ্ছেন, জনগণের মুক্তি চাচ্ছেন।’বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে বক্তব্য দেন জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর আবদুল কাদের সিদ্দিকী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সদস্য সুলতান মোহাম্মদ মুনসুর আহমেদ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফা মোহসীন মন্টু, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও ড. আবদুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, আলতাফ হোসেন, সেলিমা রহমান, বরকত উল্লাহ বুলু, মো. শাজাহান, শামসুজ্জামান দুদু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, জয়নুল আবদীন ফারুক, হাবিবুর রহমান হাবিব, ড. সুকোমল বড়ুয়া, আবদুস সালাম, আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন প্রমুখ।
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আগামীকাল একটা ছোট সংলাপের ডাক দিয়েছে। আমরা রাজী আছি। সংলাপে বিশ্বাস করি। আমরা চাই আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে জনগণের সমস্যার সমাধান হোক, জনগণ মুক্তি পাক। কিন্তু এটা নিয়ে নাটক করলে চলবে না। আপনাকে ছেড়ে দিতে হবে, সংসদ বাতিল করতে হবে। একই সঙ্গে নির্বাচনের জন্য একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। আমরা আশা করবো, আপনাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে, জনগণের স্বার্থে ৭ দফা দাবি মেনে নেবেন।’জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেন, ‘এ লড়াই মুক্তির লড়াই, এ লড়াই গণতন্ত্রের লড়াই, এ লড়াইয়ে জিততে হবে। প্রধানমন্ত্রীকে বলতে চাই, আমরা দাবি আদায় ছাড়া ঘরে ফিরবো না। ৭ দফা দাবি মেনে নিন। তা নাহলে আপনার উপায় নেই। আর গায়েবী মামলা দেবেন না, কাউকে গ্রেফতার করবেন না, খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দিদের মুক্তি দিন। অন্যথায় খবর আছে।’তিনি বলেন, এ সরকার যদি আগামীকাল (বুধবার) সংলাপে আমাদের সাতদফা দাবি-দাওয়া মেনে না নেয়, তাহলে ৮ নভেম্বর রোড মার্চ করে ৯ তারিখ রাজশাহীতে জনসভা। পরে খুলনা, বরিশাল ও ময়মনসিংহে জনসভা করা হবে। আর নির্বাচন কমিশন যদি সমঝোতার আগে তফসিল ঘোষণা করে তাহলে নির্বাচন কমিশন অভিমুখে পদযাত্রার কর্মসূচি দেয়া হবে।
কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘আমি বিএনপিতে যোগ দেইনি। আমি ড. কামাল হোসেনের ঐক্যফ্রন্টে যোগদান করেছি। আমি বলব, যদি আপনারা জিততে চান, তাহলে জয় আপনাদের হাতে। আর যদি হারতে চান তাও আপনাদের হাতে। যদি বিজয়ী হতে চান তাহলে নির্বাচন পর্যন্ত বিএনপি ভুলে যান। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পতাকা তলে হিমান্দ্রির মতো অন্তত পক্ষে সোজা হয়ে দাঁড়ান।’
তিনি বলেন, ‘ বিএনপির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের অভিযোগ বিএনপি রাজকারের গাড়িতে বাংলাদেশের পতাকা তুলে দিয়েছে। অভিযোগ সত্য নয়। আওয়ামী লীগ প্রথম শরিষাবাড়ির নুরু মাওলানার গাড়িতে পতাকা তুলেছে। আওয়ামী লীগ রাজাকার মহিউদ্দিনের গাড়িতে পতাকা তুলেছে, আওয়ামী লীগের আশিকুর রহমানের গাড়িতে পতাকা তুলেছে। গত ৪ তারিখ প্রধানমন্ত্রী এখানে এসেছেন। আল্লামা শফি ভুলে যেতে পারেন। আমি কাদের সিদ্দিকী ভুলি নাই, শাপলার চত্বরে ইমাম-ওলামাদের কিভাবে রক্ত ঝরিয়েছে। এ রক্তের বদলা না দিলে আমরা বেঈমানে পরিণত হবো। রিঅ্যাকশন দিতে হাসিনাকে। উপায় নাই। এ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আমরা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতা এনেছিলাম, আজকে বলে যাচ্ছি, ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে আমরা এ পল্টন থেকে গণতন্ত্রকে মুক্ত করবো, খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবো।’

ঢাকা,মঙ্গলবার,০৬ নভেম্বর,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Design & Developed BY PopularITLimited