শুধু আইন করে নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ হবে না, সচেতনতা সৃষ্টি করে ঐক্যবদ্ধভাবে সমাজকে এগিয়ে নিতে হবে।

শুধু আইন করে নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ হবে না, সচেতনতা সৃষ্টি করে ঐক্যবদ্ধভাবে সমাজকে এগিয়ে নিতে হবে বরে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে শনিবার (৯ মার্চ) আয়োজিত অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।শেখ হাসিনা বলেন, নারী নির্যাতনকারীর পরিচয় সমাজের সর্বস্তরে উন্মোচন করে দিতে হবে, যাতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয়। অর্থনৈতিক স্বাধীনতা অর্জন করলে নারীরা সমাজে প্রতিষ্ঠা পাবে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, প্রায়ই দেখি শিশু ধর্ষণ, নারী ধর্ষণ, এটা অত্যন্ত গর্হিত একটা কাজ। যারা এসব করে তারা সমাজের শত্রু, তাদের প্রতি ঘৃণা।
ধর্ষকদের বিরুদ্ধে আরো বেশি সচেতনতা ও জনমত সৃষ্টির তাগিদ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি বলবো যারা এ ধরনের কাজ করে তাদের নাম-দাম, চেহারা ভালোভাবে প্রচার করা। নির্যাতিত নারীদের নয়, যে ধর্ষক তার পরিচয়, চেহারা এমনভাবে প্রচার করা যাতে সমাজের প্রতিটি স্তরের মানুষ যেন তাকে ঘৃণার চোখে দেখে এবং এই ভাবে তাকে সমাজের বাইরে করে দেওয়া প্রয়োজন।শেখ হাসিনা বলেন, নারী যদি অর্থনৈতিক স্বাধীনতা অর্জন করতে পারে তাহলে পরিবারে, সমাজে তার মতামতের গুরুত্ব থাকবে। এই গুরুত্ব পাওয়ার জন্য নারীদের শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। কন্যা শিশুরা যেন কখনো বৈষম্যের শিকার না হয় এ বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের কন্যা শিশুরা যেন কখনো বৈষম্যের শিকার না হয়। সেই সচেতনতা ইতোমধ্যে আমাদের সমাজে এসে গেছে। এটা আরো ভালোভাবে প্রচার দরকার।
তিনি বলেন, আইনগত ব্যবস্থা তো তাদের বিরুদ্ধে নেওয়া হবেই। আপনারা জানেন ইতোমধ্যে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে আমরা তাদের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা নিচ্ছি। তারপরও এর বিরুদ্ধে আরো বেশি সচেতনতা ও জনমত সৃষ্টি করা দরকার।
নারীর প্রতি সহিংসতা ও বৈষম্য দূর করতে সামাজিক সচেতনতার ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা কথা মনে রাখতে হবে শুধু আইন করলে সহিংসতা বা বৈষম্য দূর হবে না। এজন্য সমাজে সচেতনা সৃষ্টি করা একান্তভাবে দরকার। এ ক্ষেত্রে আমাদের সবার, মা-বোনেরা যারা আছেন- নারী পুরুষ সবাই এক হয়ে কাজ করতে হবে।শিক্ষা, খেলাধুলা, পেশাগত কাজ, নারীর ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশি নারীদের সফলতার কথা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন ক্ষেত্রে কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রেখে ‘জয়িতা’ পদকপ্রাপ্তদের হাতে সনদ ও পুরস্কার তুলে দেন।
ঢাকা,শনিবার,০৯ মার্চ,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

সর্বশেষ আপডেট



» রাজধানীর মালিবাগ মোড়ে বিস্ফোরণে নারী পুলিশ সদস্যসহ আহত ২

» রাজধানীর মালিবাগ মোড়ে পুলিশের গাড়িতে বোমা নিক্ষেপ এএসআইসহ আহত ২

» কলাপাড়ায় পেয়ারা চাষ করে ভাগ্য বদল

» ইসির নতুন সচিব হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মো. আলমগীর

» আসন্ন ঈদযাত্রা বিগত সময়ের চেয়ে অনেক সহজ ও স্বস্তিদায়ক হবে-ওবায়দুল কাদের

» ‘বর্তমানে দেশে অনলাইন মিডিয়ার সংখ্যা প্রায় তিন হাজার ৫০০। এ জন্যই অনলাইন মিডিয়ায় শৃঙ্খলা আনা প্রয়োজন। আর এ জন্যই অনলাইন নীতিমালার মাধ্যমে এ ধরনের মিডিয়াগুলোকে নিবন্ধনের আওতায় আনা হবে-তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

» নারীর সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার-প্রধানমন্ত্রী

» প্রতারক চক্রের মূলহোতা বারেকসহ পাঁচজনকে আটক করেছে র‌্যাব-৪

» খালেদা জিয়াকে সর্বোচ্চ চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে-তথ্যমন্ত্রী

» নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চোখের চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেছেন রাষ্ট্রপতি

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

শুধু আইন করে নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ হবে না, সচেতনতা সৃষ্টি করে ঐক্যবদ্ধভাবে সমাজকে এগিয়ে নিতে হবে।

শুধু আইন করে নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ হবে না, সচেতনতা সৃষ্টি করে ঐক্যবদ্ধভাবে সমাজকে এগিয়ে নিতে হবে বরে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে শনিবার (৯ মার্চ) আয়োজিত অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।শেখ হাসিনা বলেন, নারী নির্যাতনকারীর পরিচয় সমাজের সর্বস্তরে উন্মোচন করে দিতে হবে, যাতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয়। অর্থনৈতিক স্বাধীনতা অর্জন করলে নারীরা সমাজে প্রতিষ্ঠা পাবে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, প্রায়ই দেখি শিশু ধর্ষণ, নারী ধর্ষণ, এটা অত্যন্ত গর্হিত একটা কাজ। যারা এসব করে তারা সমাজের শত্রু, তাদের প্রতি ঘৃণা।
ধর্ষকদের বিরুদ্ধে আরো বেশি সচেতনতা ও জনমত সৃষ্টির তাগিদ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি বলবো যারা এ ধরনের কাজ করে তাদের নাম-দাম, চেহারা ভালোভাবে প্রচার করা। নির্যাতিত নারীদের নয়, যে ধর্ষক তার পরিচয়, চেহারা এমনভাবে প্রচার করা যাতে সমাজের প্রতিটি স্তরের মানুষ যেন তাকে ঘৃণার চোখে দেখে এবং এই ভাবে তাকে সমাজের বাইরে করে দেওয়া প্রয়োজন।শেখ হাসিনা বলেন, নারী যদি অর্থনৈতিক স্বাধীনতা অর্জন করতে পারে তাহলে পরিবারে, সমাজে তার মতামতের গুরুত্ব থাকবে। এই গুরুত্ব পাওয়ার জন্য নারীদের শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। কন্যা শিশুরা যেন কখনো বৈষম্যের শিকার না হয় এ বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের কন্যা শিশুরা যেন কখনো বৈষম্যের শিকার না হয়। সেই সচেতনতা ইতোমধ্যে আমাদের সমাজে এসে গেছে। এটা আরো ভালোভাবে প্রচার দরকার।
তিনি বলেন, আইনগত ব্যবস্থা তো তাদের বিরুদ্ধে নেওয়া হবেই। আপনারা জানেন ইতোমধ্যে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে আমরা তাদের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা নিচ্ছি। তারপরও এর বিরুদ্ধে আরো বেশি সচেতনতা ও জনমত সৃষ্টি করা দরকার।
নারীর প্রতি সহিংসতা ও বৈষম্য দূর করতে সামাজিক সচেতনতার ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা কথা মনে রাখতে হবে শুধু আইন করলে সহিংসতা বা বৈষম্য দূর হবে না। এজন্য সমাজে সচেতনা সৃষ্টি করা একান্তভাবে দরকার। এ ক্ষেত্রে আমাদের সবার, মা-বোনেরা যারা আছেন- নারী পুরুষ সবাই এক হয়ে কাজ করতে হবে।শিক্ষা, খেলাধুলা, পেশাগত কাজ, নারীর ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশি নারীদের সফলতার কথা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন ক্ষেত্রে কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রেখে ‘জয়িতা’ পদকপ্রাপ্তদের হাতে সনদ ও পুরস্কার তুলে দেন।
ঢাকা,শনিবার,০৯ মার্চ,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Design & Developed BY PopularITLimited