অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহারে গুলি হচ্ছে,আত্মরক্ষার্থে গুলি করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সিনিয়র রিপোর্টার,ঢাকা:‌স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, মাদকবিরোধী অভিযানে গেলে যখন অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহারে গুলি ছোড়া হচ্ছে তখনই আত্মরক্ষার্থে গুলি করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। কাউকে হত্যার উদ্দেশ্যে নয়।
শনিবার দুপুরে রাজধানীর তেজগাঁও বিজি প্রেস মাঠে আয়োজিত মাদকবিরোধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন,যারা ইয়াবা সেবন করেন তাদের মেধা বিলুপ্ত হয়। ৩-৪ বছর ইয়াবা হেরোইন সেবন করলে নিজের নামটাও ভুলে যাবার দশা হয়। একটা মানুষ যদি ২৪ ঘণ্টা জেগে থাকেন তাহলে তিনি কতোটা সুস্থ থাকবেন।
মন্ত্রী বলেন, আমরা কঠিন সাজার ব্যবস্থা করে নতুন আইন করেছি। এই আইনের কঠোর প্রয়োগ হচ্ছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের কারাগারে ধারণ ক্ষমতা ৩৫ হাজার। অথচ আছে ৯৫ হাজার কয়েদি। এই কয়েদিদের অধিকাংশই মাদক সংশ্লিষ্ট মামলায় গ্রেফতার।
মন্ত্রী বলেন,ইয়াং গ্রুপ সীসা বারে যায়। হুক্কা টানে। আগুনে ইয়াবা গুড়া করে টানছে। সেজন্য আমরা সীসাবারও নিয়ন্ত্রণে এনেছি।
বিদেশে দেখেন যেখানেই মাদকের ব্যবসা সেখানে কী পরিমাণ অস্ত্রের ব্যবসাও হচ্ছে। আমরা বলেছি, আইনি সহযোগিতা করবো, সারেন্ডার করেন, মুচলেকা দেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অভিযানে মাদক কারবারীদের ধরতে গেলেই অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার করছে। আত্মরক্ষার অধিকার তো আমাদের বাহিনীরও আছে। যারাই সারেন্ডার করবেন, মাদকের ব্যবসা করবেন ছাড়বেন, তাদের শেষ সুযোগটা দেয়া হবে। নইলে জেলে যেতে হবে। আর অস্ত্রের ঝনঝনানি যদি দেখাতে চান তাহলে কী পরিণতি হতে পারে তা আপনারাই জানেন।
মন্ত্রী বলেন,তোমরা ছাত্র যুবকরা মাদককে না বলবে, মাদক বিক্রেতা ও ব্যবসায়ীদের ধরিয়ে দেবে। আমরা তালিকা করেছি, কাউকে ছাড়বো না। ব্যবসা না ছাড়া পর্যন্ত আমাদের অভিযান চলবে।
মাদকের ব্যাপারে যারা তথ্য দিচ্ছেন, তাদের পুরস্কৃত করা হচ্ছে। বাবা মা যেমন জঙ্গি সন্তানকে ধরিয়ে দিয়েছিল তেমনি মাদকাসক্ত সন্তানকে নিয়ে আসুন। আসুন আমরা ঘুরে দাঁড়াই মাদকের বিরুদ্ধে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও বর্তমানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ই কমিটির সভাপতি শামসুল হক টুকু বলেন, যুব সমাজ ছাত্র সমাজ দৃঢ় প্রত্যয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিল। আজ যুব সমাজের বড় অংশ মাদকাসক্ত। তাদের জন্য আমরা কী করতে পেরেছি? আমাদের সন্তানরা যেন মাদকাসক্ত না হয়, মাদক নেয় কিনা খোঁজ রাখা, খেয়াল রাখা দরকার।
টুকু বলেন,রাজনীতিবিদরা রাজনীতি করি দেশের জন্য, মানুষের জন্য। মাদকবিরোধী অবস্থান নিয়েও আমাদের সকল রাজনীতিবিদের কাজ করতে হবে। মাদকমুক্ত নের্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে হবে। মাদক ব্যবসায়ীমুক্ত নের্তৃত্ব যদি প্রতিষ্ঠা করতে পারি তাহলে মাদকের বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ তা অনেকটা সফল হবে। সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অনেক কঠিন কাজ সহজ হয়।
অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) জামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর আর ঠুঁটো জগন্নাত নয়। জনবল দ্বিগুণ করেছে, ৩২২২ জন জনবল করা হয়েছে।
ডিজি জামাল বলেন,মাদকবিরোধী সমাবেশ করা হচ্ছে জেলায় জেলায়। মাদকবিরোধী মানুষদের সঙ্গে নিয়ে কাজ করছি। মাদকাসক্তির সংখ্যা যাই হোক না কেন, বাড়তে দেয়া যাবে না, এটা বন্ধ করতে হবে, মাদকের অস্তিত্ব বাংলাদেশে থাকতে দেয়া হবে না। এজন্য ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তুলতে হবে, প্রতিবাদ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি মোসাদ্দেক মো. আবুল কালাম, কাউন্সিলর মুন্সি কামরুজ্জামান কাজল, মনোচিকিৎসক মোহিত কামাল, মানসের অধ্যাপক অরুপ রতন চৌধুরী।

মোঃ মাসুদ হাসান মোল্লা রিদম,
ঢাকা,শনিবার,০৯ মার্চ,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

সর্বশেষ আপডেট



» রাজধানীর মালিবাগ মোড়ে বিস্ফোরণে নারী পুলিশ সদস্যসহ আহত ২

» রাজধানীর মালিবাগ মোড়ে পুলিশের গাড়িতে বোমা নিক্ষেপ এএসআইসহ আহত ২

» কলাপাড়ায় পেয়ারা চাষ করে ভাগ্য বদল

» ইসির নতুন সচিব হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মো. আলমগীর

» আসন্ন ঈদযাত্রা বিগত সময়ের চেয়ে অনেক সহজ ও স্বস্তিদায়ক হবে-ওবায়দুল কাদের

» ‘বর্তমানে দেশে অনলাইন মিডিয়ার সংখ্যা প্রায় তিন হাজার ৫০০। এ জন্যই অনলাইন মিডিয়ায় শৃঙ্খলা আনা প্রয়োজন। আর এ জন্যই অনলাইন নীতিমালার মাধ্যমে এ ধরনের মিডিয়াগুলোকে নিবন্ধনের আওতায় আনা হবে-তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

» নারীর সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার-প্রধানমন্ত্রী

» প্রতারক চক্রের মূলহোতা বারেকসহ পাঁচজনকে আটক করেছে র‌্যাব-৪

» খালেদা জিয়াকে সর্বোচ্চ চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে-তথ্যমন্ত্রী

» নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চোখের চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেছেন রাষ্ট্রপতি

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহারে গুলি হচ্ছে,আত্মরক্ষার্থে গুলি করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সিনিয়র রিপোর্টার,ঢাকা:‌স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, মাদকবিরোধী অভিযানে গেলে যখন অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহারে গুলি ছোড়া হচ্ছে তখনই আত্মরক্ষার্থে গুলি করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। কাউকে হত্যার উদ্দেশ্যে নয়।
শনিবার দুপুরে রাজধানীর তেজগাঁও বিজি প্রেস মাঠে আয়োজিত মাদকবিরোধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন,যারা ইয়াবা সেবন করেন তাদের মেধা বিলুপ্ত হয়। ৩-৪ বছর ইয়াবা হেরোইন সেবন করলে নিজের নামটাও ভুলে যাবার দশা হয়। একটা মানুষ যদি ২৪ ঘণ্টা জেগে থাকেন তাহলে তিনি কতোটা সুস্থ থাকবেন।
মন্ত্রী বলেন, আমরা কঠিন সাজার ব্যবস্থা করে নতুন আইন করেছি। এই আইনের কঠোর প্রয়োগ হচ্ছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের কারাগারে ধারণ ক্ষমতা ৩৫ হাজার। অথচ আছে ৯৫ হাজার কয়েদি। এই কয়েদিদের অধিকাংশই মাদক সংশ্লিষ্ট মামলায় গ্রেফতার।
মন্ত্রী বলেন,ইয়াং গ্রুপ সীসা বারে যায়। হুক্কা টানে। আগুনে ইয়াবা গুড়া করে টানছে। সেজন্য আমরা সীসাবারও নিয়ন্ত্রণে এনেছি।
বিদেশে দেখেন যেখানেই মাদকের ব্যবসা সেখানে কী পরিমাণ অস্ত্রের ব্যবসাও হচ্ছে। আমরা বলেছি, আইনি সহযোগিতা করবো, সারেন্ডার করেন, মুচলেকা দেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অভিযানে মাদক কারবারীদের ধরতে গেলেই অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার করছে। আত্মরক্ষার অধিকার তো আমাদের বাহিনীরও আছে। যারাই সারেন্ডার করবেন, মাদকের ব্যবসা করবেন ছাড়বেন, তাদের শেষ সুযোগটা দেয়া হবে। নইলে জেলে যেতে হবে। আর অস্ত্রের ঝনঝনানি যদি দেখাতে চান তাহলে কী পরিণতি হতে পারে তা আপনারাই জানেন।
মন্ত্রী বলেন,তোমরা ছাত্র যুবকরা মাদককে না বলবে, মাদক বিক্রেতা ও ব্যবসায়ীদের ধরিয়ে দেবে। আমরা তালিকা করেছি, কাউকে ছাড়বো না। ব্যবসা না ছাড়া পর্যন্ত আমাদের অভিযান চলবে।
মাদকের ব্যাপারে যারা তথ্য দিচ্ছেন, তাদের পুরস্কৃত করা হচ্ছে। বাবা মা যেমন জঙ্গি সন্তানকে ধরিয়ে দিয়েছিল তেমনি মাদকাসক্ত সন্তানকে নিয়ে আসুন। আসুন আমরা ঘুরে দাঁড়াই মাদকের বিরুদ্ধে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও বর্তমানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ই কমিটির সভাপতি শামসুল হক টুকু বলেন, যুব সমাজ ছাত্র সমাজ দৃঢ় প্রত্যয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিল। আজ যুব সমাজের বড় অংশ মাদকাসক্ত। তাদের জন্য আমরা কী করতে পেরেছি? আমাদের সন্তানরা যেন মাদকাসক্ত না হয়, মাদক নেয় কিনা খোঁজ রাখা, খেয়াল রাখা দরকার।
টুকু বলেন,রাজনীতিবিদরা রাজনীতি করি দেশের জন্য, মানুষের জন্য। মাদকবিরোধী অবস্থান নিয়েও আমাদের সকল রাজনীতিবিদের কাজ করতে হবে। মাদকমুক্ত নের্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে হবে। মাদক ব্যবসায়ীমুক্ত নের্তৃত্ব যদি প্রতিষ্ঠা করতে পারি তাহলে মাদকের বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ তা অনেকটা সফল হবে। সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অনেক কঠিন কাজ সহজ হয়।
অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) জামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর আর ঠুঁটো জগন্নাত নয়। জনবল দ্বিগুণ করেছে, ৩২২২ জন জনবল করা হয়েছে।
ডিজি জামাল বলেন,মাদকবিরোধী সমাবেশ করা হচ্ছে জেলায় জেলায়। মাদকবিরোধী মানুষদের সঙ্গে নিয়ে কাজ করছি। মাদকাসক্তির সংখ্যা যাই হোক না কেন, বাড়তে দেয়া যাবে না, এটা বন্ধ করতে হবে, মাদকের অস্তিত্ব বাংলাদেশে থাকতে দেয়া হবে না। এজন্য ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তুলতে হবে, প্রতিবাদ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি মোসাদ্দেক মো. আবুল কালাম, কাউন্সিলর মুন্সি কামরুজ্জামান কাজল, মনোচিকিৎসক মোহিত কামাল, মানসের অধ্যাপক অরুপ রতন চৌধুরী।

মোঃ মাসুদ হাসান মোল্লা রিদম,
ঢাকা,শনিবার,০৯ মার্চ,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Design & Developed BY PopularITLimited