ছয় শতাধিক চরমপন্থী অস্ত্র জমা দিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ছয় শতাধিক চরমপন্থী অস্ত্র জমা দিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছে।মঙ্গলবার (০৯ এপ্রিল) বিকেলে পাবনা জেলা স্টেডিয়ামে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করেন স্থানীয় ২৫ চরমপন্থী। এসময় প্রায় ১০০টি আগ্নেয়াস্ত্র জমা দেন তারা। পরে অন্যরাও আত্মসমর্পণ করেন।
স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১৫ জেলার ছয় শতাধিক চরমপন্থী আত্মসমর্পণ করেছেন। অনুষ্ঠানে যেসব জেলা থেকে চরমপন্থীরা আত্মসমর্পণ করেছেন সেই জেলাগুলো হচ্ছে- পাবনা, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, সিরাজগঞ্জ, নাটোর, নওগাঁ, রংপুর, বগুড়া, টাঙ্গাইল, রাজশাহী, খুলনা, নড়াইল, যশোর, সাতক্ষীরা ও জয়পুরহাট। প্রাথমিক পর্যায়ে এসব জেলা থেকে প্রায় সাড়ে ৬শ’ চরমপন্থী আত্মসমর্পণ করার তালিকা করা হয়। এ সময় পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারীসহ পাবনা ও রাজশাহীর জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এই অনুষ্ঠানকে ঘিরে গত এক সপ্তাহ ধরে পাবনা উৎসবের নগরীতে পরিণত হয়।
পুলিশ জানায়, অন্ধকারের পথ ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার ঘোষণা দিয়ে আত্মসমর্পণের সিদ্ধান্ত নেন পাবনাসহ উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের ১৫ জেলার পূর্ববাংলার সর্বহারা পার্টি, পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল লাল পতাকা), নিউ পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি ও কাদামাটি নামের চারটি নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থী সংগঠনের ৬১৪ জন সদস্য। এদের মধ্যে মঙ্গলবার ৫৯৫ জন আত্মসমর্পণ করে। অন্য ১৯ জন আইনি প্রক্রিয়ার পর আত্মসমর্পণ করবে বলে আশা করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।এ উপলক্ষে মঙ্গলবার বিকেলে পাবনার শহীদ অ্যাডভোকেট আমিন উদ্দিন স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। পাবনার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। প্রধান বক্তা ছিলেন আইজিপি ড. জাবেদ পাটোয়ারী। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, সাংসদ শামসুর রহমান শরীফ ডিলু, গোলাম ফারুক প্রিন্স, শামসুল হক টুকু, মকবুল হোসেন, আহমেদ ফিরোজ কবির, ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক ও নাদিরা ইয়াসমিন জলি, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি এম খুরশিদ হোসেন, পাবনার জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন, আত্মসমর্পণকারী পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল লাল পতাকা) আঞ্চলিক নেতা আব্দুর রাজ্জাক ওরফে আর্ট বাবু, পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টির পাবনার আঞ্চলিক নেতা ইউসুফ আলী ফকির ওরফে মিন্টু ফকিরের স্ত্রী রত্না বেগম।
পাবনা,মঙ্গলবার,০৯ এপ্রিল,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

সর্বশেষ আপডেট



» শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় নিহত জায়ান চৌধুরীর লাশ মঙ্গলবার দেশে ফিরিয়ে আনা হবে

» শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ বোমা হামলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৯০

» শ্রীলঙ্কায় নিহত আওয়ামী লীগের নেতা শেখ সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরীর লাশ ঢাকা আনা হবে আগামীকাল

» শ্রীলঙ্কায় বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২০৭

» যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় আজ রোববার রাতে সারাদেশে পবিত্র শবেবরাত পালন শুরু হয়েছে।

» শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ সেলিমের নাতি শিশু জায়ান চৌধুরীর মরদেহ উদ্ধার, এখনও নিখোঁজ এক বাংলাদেশি

» সৌদি আরবের রিয়াদের একটি থানায় হামলা, নিহত ৪

» প্রধানমন্ত্রীর জাদুকরী নেতৃত্বে বাংলাদেশ বদলে গেছে-তথ্যমন্ত্রী

» বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ফিরিয়ে আনবো

» শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় হতাহতের ঘটনায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক প্রকাশ

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

ছয় শতাধিক চরমপন্থী অস্ত্র জমা দিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ছয় শতাধিক চরমপন্থী অস্ত্র জমা দিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছে।মঙ্গলবার (০৯ এপ্রিল) বিকেলে পাবনা জেলা স্টেডিয়ামে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করেন স্থানীয় ২৫ চরমপন্থী। এসময় প্রায় ১০০টি আগ্নেয়াস্ত্র জমা দেন তারা। পরে অন্যরাও আত্মসমর্পণ করেন।
স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১৫ জেলার ছয় শতাধিক চরমপন্থী আত্মসমর্পণ করেছেন। অনুষ্ঠানে যেসব জেলা থেকে চরমপন্থীরা আত্মসমর্পণ করেছেন সেই জেলাগুলো হচ্ছে- পাবনা, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, সিরাজগঞ্জ, নাটোর, নওগাঁ, রংপুর, বগুড়া, টাঙ্গাইল, রাজশাহী, খুলনা, নড়াইল, যশোর, সাতক্ষীরা ও জয়পুরহাট। প্রাথমিক পর্যায়ে এসব জেলা থেকে প্রায় সাড়ে ৬শ’ চরমপন্থী আত্মসমর্পণ করার তালিকা করা হয়। এ সময় পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারীসহ পাবনা ও রাজশাহীর জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এই অনুষ্ঠানকে ঘিরে গত এক সপ্তাহ ধরে পাবনা উৎসবের নগরীতে পরিণত হয়।
পুলিশ জানায়, অন্ধকারের পথ ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার ঘোষণা দিয়ে আত্মসমর্পণের সিদ্ধান্ত নেন পাবনাসহ উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের ১৫ জেলার পূর্ববাংলার সর্বহারা পার্টি, পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল লাল পতাকা), নিউ পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি ও কাদামাটি নামের চারটি নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থী সংগঠনের ৬১৪ জন সদস্য। এদের মধ্যে মঙ্গলবার ৫৯৫ জন আত্মসমর্পণ করে। অন্য ১৯ জন আইনি প্রক্রিয়ার পর আত্মসমর্পণ করবে বলে আশা করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।এ উপলক্ষে মঙ্গলবার বিকেলে পাবনার শহীদ অ্যাডভোকেট আমিন উদ্দিন স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। পাবনার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। প্রধান বক্তা ছিলেন আইজিপি ড. জাবেদ পাটোয়ারী। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, সাংসদ শামসুর রহমান শরীফ ডিলু, গোলাম ফারুক প্রিন্স, শামসুল হক টুকু, মকবুল হোসেন, আহমেদ ফিরোজ কবির, ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক ও নাদিরা ইয়াসমিন জলি, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি এম খুরশিদ হোসেন, পাবনার জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন, আত্মসমর্পণকারী পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল লাল পতাকা) আঞ্চলিক নেতা আব্দুর রাজ্জাক ওরফে আর্ট বাবু, পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টির পাবনার আঞ্চলিক নেতা ইউসুফ আলী ফকির ওরফে মিন্টু ফকিরের স্ত্রী রত্না বেগম।
পাবনা,মঙ্গলবার,০৯ এপ্রিল,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Design & Developed BY PopularITLimited