করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলাদেশে

নতুন আক্রান্ত মোট আক্রান্ত সুস্থ মৃত্যু
২২৫২ ৪,৭৩,৯৯১ ৩,৯০,৯৫১ ৬৭৭২

মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন কণ্ঠসৈনিক শিল্পী আবদুল জব্বার

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কণ্ঠসৈনিক শিল্পী আবদুল জব্বারের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানানোর পর ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তাঁকে ঢাকা জেলার পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়। এর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে দ্বিতীয় জানাজা শেষে তাঁকে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করা হয়।গত বুধবার সকাল ৯টা ১০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। আবদুল জব্বারের জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্যে রয়েছে—সালাম সালাম হাজার সালাম, তুমি কি দেখেছো কভু, ওরে নীল দরিয়া, পিচ ঢালা এই পথ, এক বুক জ্বালা নিয়ে, বন্ধু তুমি শত্রু তুমি, বিদায় দাও গো বন্ধু তোমরা, তুমি আছো সবই আছে, তুমি আছো সবই আছে, তারা ভরা রাতে, আমি তো বন্ধু মাতাল নই।
আবদুল জব্বার ১৯৩৮ সালের ৭ নভেম্বর কুষ্টিয়া জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫৮ সাল থেকে তৎকালীন পাকিস্তান বেতারে তাঁর গান গাওয়া শুরু। তিনি ১৯৬২ সালে চলচ্চিত্রের জন্য প্রথম গান করেন। ১৯৬৪ সাল থেকে তিনি বিটিভির নিয়মিত গায়ক হিসেবে পরিচিতি পান। ১৯৬৪ সালে জহির রায়হান পরিচালিত তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রথম রঙিন চলচ্চিত্র ‘সংগম’-এর গানে কণ্ঠ দেন।১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের মনোবল ও প্রেরণা যুগাতে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে সালাম সালাম হাজার সালাম ও জয় বাংলা বাংলার জয়সহ অংসখ্য গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। তাঁর গানে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেকেই মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছিলেন। এছাড়া যুদ্ধের সময়কালে তিনি প্রখ্যাত ভারতীয় কণ্ঠশিল্পী হেমন্ত মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে মুম্বাইয়ের বিভিন্ন স্থানে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পক্ষে জনমত তৈরিতে কাজ করেন। তৎকালীন সময়ে কলকাতাতে অবস্থিত বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধাদের ক্যাম্প ঘুরে হারমোনি বাজিয়ে গণসঙ্গীত পরিবেশন করেছেন যা মুক্তিযুদ্ধাদের প্রেরণা যুগিয়েছে।

বিনোদন ডেস্ক,বৃহস্পতিবার,৩১ আগষ্ট, এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

সর্বশেষ আপডেট



» বিতর্কে না জড়িয়ে আন্দোলনে আসেন। দেশে গণতন্ত্র নেই, দ্রব্যমূল্য কমছে না আলেমদের উদ্দেশে জাফরুল্লাহ

» মানিকগঞ্জে বাস-সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে সাতজন নিহত

» ১ হাজার ৬৪২ জন রোহিঙ্গা নোয়াখালীর ভাসানচরে পৌঁছালেন

» টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বাসের সঙ্গে ট্রাকের সংঘর্ষে ছয়জন নিহত

» নতুন করে আরও ২২৫২ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত,মৃত্যু ২৪ জন

» পদ্মা সেতুতে বসলো ৪০তম স্প্যান। এখন দৃশ্যমান ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার

» দেশে ভাস্কর্য নিয়ে অহেতুক একটি বিতর্ক সৃষ্টির অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে

» অস্ত্র ও মাদকদ্রব্যের তিন মামলায় গোল্ডেন মনিরের নয় দিনের রিমান্ড

» আন্দোলনে ব্যর্থ বিএনপি এখন অন্যের উপর নির্ভর করে ক্ষমতায় যেতে অন্ধকারের চোরাগলি খুঁজছে

» নতুন করে আরও ২৩১৬ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত,মৃত্যু ৩৫ জন

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com




আজ শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০ খ্রিষ্টাব্দ, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন কণ্ঠসৈনিক শিল্পী আবদুল জব্বার

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কণ্ঠসৈনিক শিল্পী আবদুল জব্বারের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানানোর পর ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তাঁকে ঢাকা জেলার পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়। এর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে দ্বিতীয় জানাজা শেষে তাঁকে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করা হয়।গত বুধবার সকাল ৯টা ১০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। আবদুল জব্বারের জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্যে রয়েছে—সালাম সালাম হাজার সালাম, তুমি কি দেখেছো কভু, ওরে নীল দরিয়া, পিচ ঢালা এই পথ, এক বুক জ্বালা নিয়ে, বন্ধু তুমি শত্রু তুমি, বিদায় দাও গো বন্ধু তোমরা, তুমি আছো সবই আছে, তুমি আছো সবই আছে, তারা ভরা রাতে, আমি তো বন্ধু মাতাল নই।
আবদুল জব্বার ১৯৩৮ সালের ৭ নভেম্বর কুষ্টিয়া জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫৮ সাল থেকে তৎকালীন পাকিস্তান বেতারে তাঁর গান গাওয়া শুরু। তিনি ১৯৬২ সালে চলচ্চিত্রের জন্য প্রথম গান করেন। ১৯৬৪ সাল থেকে তিনি বিটিভির নিয়মিত গায়ক হিসেবে পরিচিতি পান। ১৯৬৪ সালে জহির রায়হান পরিচালিত তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রথম রঙিন চলচ্চিত্র ‘সংগম’-এর গানে কণ্ঠ দেন।১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের মনোবল ও প্রেরণা যুগাতে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে সালাম সালাম হাজার সালাম ও জয় বাংলা বাংলার জয়সহ অংসখ্য গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। তাঁর গানে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেকেই মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছিলেন। এছাড়া যুদ্ধের সময়কালে তিনি প্রখ্যাত ভারতীয় কণ্ঠশিল্পী হেমন্ত মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে মুম্বাইয়ের বিভিন্ন স্থানে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পক্ষে জনমত তৈরিতে কাজ করেন। তৎকালীন সময়ে কলকাতাতে অবস্থিত বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধাদের ক্যাম্প ঘুরে হারমোনি বাজিয়ে গণসঙ্গীত পরিবেশন করেছেন যা মুক্তিযুদ্ধাদের প্রেরণা যুগিয়েছে।

বিনোদন ডেস্ক,বৃহস্পতিবার,৩১ আগষ্ট, এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com

Translate »