বাজেট ব্যবসায়ী আর সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে

বর্তমান সরকারের ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট ব্যবসায়ী আর সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে বাজেটে। বাজেটের ঘাটতি জনগণের পকেট কেটে বাজেট ব্যবসায়ী আর সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে 70

বর্তমান সরকারের ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট ব্যবসায়ী আর সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে বাজেটে। বাজেটের ঘাটতি জনগণের পকেট কেটে আদায় করা হবে বলেও অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।প্রস্তাবিত বাজেটের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাতে আজ শুক্রবার দলের চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বিএনপি। বাজেটকে উচ্চাভিলাসী আখ্যায়িত করে বিএনপির তরফ থেকে বলা হয় বাজেটের আকার বড় করার চমক সৃষ্টির প্রতিযোগিতায় নেমেছে সরকার। বাজেট নিয়ে জনমনে কোনো উচ্ছাস নেই উল্লেখ করে দলটি অভিযোগ করে বাজেটে উপেক্ষা করা হয়েছে সাধারণ মানুষের স্বার্থ।
দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘দেশের মানুষের বিরুদ্ধে এই বাজেট দেওয়া হয়েছে। মূল সমস্যাগুলোর কিছুই বাজেটে আসেনি। এই দেশের মানুষের প্রধান যে সমস্যা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য, তার কোনটা পূরণ হচ্ছে এখানে? কোনটাই পূরণ হওয়ার মতো বরাদ্দ এখানে রাখা হয়নি।’দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যরিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারের সুবিধাভোগীদের জন্যই এই বাজেটটা করা হয়েছে। আমাদের কৃষকরা আন্দোলন করেছেন, এমনকি আত্মহত্যা করছেন। কিন্তু কৃষকরা ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না। তাদের দুঃখ কষ্ট লাঘব করার কোন ব্যবস্থা এই বাজেটে রাখা হয়নি।’
দেশের অর্থনীতি কিছু সংখ্যক মানুষের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে অভিযোগ করে বিএনপি নেতারা বলেন, ‘যারা বাজেট প্রণয়ণ করছে তারা অর্থনীতি নিয়ন্ত্রণ করছে আবার সরকারও পরিচালনা করছে।’দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেন, ‘বাংলাদেশের পঞ্চাশ বছরের ইতিহাসে কোনদিন কোন ব্যবসায়ী কিন্তু অর্থমন্ত্রী হয় নাই। পৃথিবীর কোন দেশে সাধারণত হয় না। ব্যবসায়ী যিনি অর্থমন্ত্রী তিনি তো ব্যবসায়ীদের স্বার্থ দেখবেন, জনগণের স্বার্থ কখন দেখবেন?’প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্র অর্জন সম্ভব নয় মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশে বেকারত্ব চরম পর্যায়ে পৌঁছানো ও বিনিয়োগ কমে যাওয়াসহ সামষ্টিক অর্থনীতির ইনডেক্সগুলোর সাথে কোনো সামঞ্জস্য নেই জিডিপির প্রবৃদ্ধির।’ বাজেটের ঘাটতি মোকাবিলায় ঋণ নির্ভর বাজেট দেওয়া হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এর বোঝা চাপবে সাধারণ মানুষের ওপর।’‘অনির্বাচিত সরকার’ একটি ‘অনির্বাচিত সংসদে’ এই বাজেট দিয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, সরকার দেশকে ঋণনির্ভর অর্থনীতির বৃত্তে আবদ্ধ করে রেখেছে। এই ঋণ শোধ দিতে দেশের মানুষের ওপর সরাসরি প্রভাব পড়বে। নাগরিকদের ভুগতে হবে চরমভাবে।রফতানির চেয়ে আমদানি বেশি হচ্ছে। দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বেশি বেকার বাংলাদেশে। প্রবৃদ্ধির যে কথা বলা হচ্ছে, তার সত্যতা নিয়ে মারাত্মক প্রশ্ন আছে।
ঢাকা,শুক্রবার,১৪ জুন,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments
Download Premium WordPress Themes Free
Download Nulled WordPress Themes
Download Premium WordPress Themes Free
Download WordPress Themes Free
free online course

সর্বশেষ আপডেট



» রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় ছুরিকাঘাত করে এক মুদি দোকানিকে হত্যা

» টুকু এবং বেগম সেলিমা রহমানকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য করা হয়েছে

» পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে বাংলাদেশি ও চীনা শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষ

» রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মসজিদ মার্কেটে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস

» রাজধানীর কল্যাণপুরে রাজিয়া পেট্রল পাম্পে আগুন,নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিস সার্ভিসের ১০টি ইউনিট

» আফগানিস্তানের বিপক্ষে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড

» মানহানির দুই মামলায় খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট

» পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ ধাপে ২০ উপজেলায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত

» বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশ, সাকিব আল হাসানের সেঞ্চুরি

» টনটনে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সাত উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে বাংলাদেশ

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

বাজেট ব্যবসায়ী আর সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে

বর্তমান সরকারের ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট ব্যবসায়ী আর সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে বাজেটে। বাজেটের ঘাটতি জনগণের পকেট কেটে বাজেট ব্যবসায়ী আর সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে 70

বর্তমান সরকারের ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট ব্যবসায়ী আর সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে বাজেটে। বাজেটের ঘাটতি জনগণের পকেট কেটে আদায় করা হবে বলেও অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।প্রস্তাবিত বাজেটের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাতে আজ শুক্রবার দলের চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বিএনপি। বাজেটকে উচ্চাভিলাসী আখ্যায়িত করে বিএনপির তরফ থেকে বলা হয় বাজেটের আকার বড় করার চমক সৃষ্টির প্রতিযোগিতায় নেমেছে সরকার। বাজেট নিয়ে জনমনে কোনো উচ্ছাস নেই উল্লেখ করে দলটি অভিযোগ করে বাজেটে উপেক্ষা করা হয়েছে সাধারণ মানুষের স্বার্থ।
দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘দেশের মানুষের বিরুদ্ধে এই বাজেট দেওয়া হয়েছে। মূল সমস্যাগুলোর কিছুই বাজেটে আসেনি। এই দেশের মানুষের প্রধান যে সমস্যা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য, তার কোনটা পূরণ হচ্ছে এখানে? কোনটাই পূরণ হওয়ার মতো বরাদ্দ এখানে রাখা হয়নি।’দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যরিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারের সুবিধাভোগীদের জন্যই এই বাজেটটা করা হয়েছে। আমাদের কৃষকরা আন্দোলন করেছেন, এমনকি আত্মহত্যা করছেন। কিন্তু কৃষকরা ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না। তাদের দুঃখ কষ্ট লাঘব করার কোন ব্যবস্থা এই বাজেটে রাখা হয়নি।’
দেশের অর্থনীতি কিছু সংখ্যক মানুষের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে অভিযোগ করে বিএনপি নেতারা বলেন, ‘যারা বাজেট প্রণয়ণ করছে তারা অর্থনীতি নিয়ন্ত্রণ করছে আবার সরকারও পরিচালনা করছে।’দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেন, ‘বাংলাদেশের পঞ্চাশ বছরের ইতিহাসে কোনদিন কোন ব্যবসায়ী কিন্তু অর্থমন্ত্রী হয় নাই। পৃথিবীর কোন দেশে সাধারণত হয় না। ব্যবসায়ী যিনি অর্থমন্ত্রী তিনি তো ব্যবসায়ীদের স্বার্থ দেখবেন, জনগণের স্বার্থ কখন দেখবেন?’প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্র অর্জন সম্ভব নয় মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশে বেকারত্ব চরম পর্যায়ে পৌঁছানো ও বিনিয়োগ কমে যাওয়াসহ সামষ্টিক অর্থনীতির ইনডেক্সগুলোর সাথে কোনো সামঞ্জস্য নেই জিডিপির প্রবৃদ্ধির।’ বাজেটের ঘাটতি মোকাবিলায় ঋণ নির্ভর বাজেট দেওয়া হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এর বোঝা চাপবে সাধারণ মানুষের ওপর।’‘অনির্বাচিত সরকার’ একটি ‘অনির্বাচিত সংসদে’ এই বাজেট দিয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, সরকার দেশকে ঋণনির্ভর অর্থনীতির বৃত্তে আবদ্ধ করে রেখেছে। এই ঋণ শোধ দিতে দেশের মানুষের ওপর সরাসরি প্রভাব পড়বে। নাগরিকদের ভুগতে হবে চরমভাবে।রফতানির চেয়ে আমদানি বেশি হচ্ছে। দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বেশি বেকার বাংলাদেশে। প্রবৃদ্ধির যে কথা বলা হচ্ছে, তার সত্যতা নিয়ে মারাত্মক প্রশ্ন আছে।
ঢাকা,শুক্রবার,১৪ জুন,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Design & Developed BY PopularITLimited