আওয়ামী লীগ দেশের মানুষের জন্য আত্মত্যাগের কারণেই বিগত ৭০ বছর ধরে টিকে আছে

Spread the love

‘আওয়ামী লীগ এই উপমহাদেশের রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে একটি প্রাচীন ও সুসংগঠিত দল। এই দলকে শত আঘাতেও ছিন্ন ভিন্ন করতে পারেনি। ভবিষ্যতেও পারবে না, ইনশা আল্লাহ’ বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।আজ সোমবার বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন।শেখ হাসিনা বলেন, ‘আওয়ামী লীগের শেকড় বাংলার মাটির সাথে এমনভাবে প্রোথিত, শত চেষ্টা করেও একে কেউ উপড়ে ফেলতে পারেনি। আর পারবেও না।’প্রধানমন্ত্রী দেশের জন্য ত্যাগের মানসিকতা নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদেরও এটাই মনে রাখতে হবে যে, আমাদের পূর্বসূরীরা যেভাবে আত্মত্যাগ করে গেছেন ঠিক প্রত্যেক নেতাকর্মীকে জাতির পিতার আদর্শ নিয়ে চলতে হবে।’
শৈশবের নৈতিক শিক্ষা ‘সিম্পল লিভিং হাই থিংকিং’-এর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘সাধারণ জীবনযাপনের মধ্য দিয়েই, ত্যাগের মধ্য দিয়েই অর্জন করা যায়। কারণ বঙ্গবন্ধু বলে গেছেন, মহৎ অর্জনের জন্য মহান ত্যাগের প্রয়োজন।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি এবং তাঁর সরকার বঙ্গবন্ধুর নীতি মেনে চলার কারণেই বাংলাদেশ আজকে উন্নয়নের উচ্চ শিখরে এগিয়ে যাচ্ছে।তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এই বাংলাদেশ ও বঙ্গভূমির একটা যোগসূত্র আছে। ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন স্বাধীনতা হারায় বাংলা। নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে পরাজিত করে ব্রিটিশ বেনিয়ারা এই ভূখণ্ড শাসন করেছে, মীরজাফরের ষড়যন্ত্রে। আমরা জানি এই মীরজাফর একটা গালিতে পরিণত হয়েছে। এরপর দুইশ’ বছর শাসন করেছে ব্রিটিশরা।
‘সেটাও ছিল ২৩ জুন, আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা লাভ করে ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন। এই আওয়ামী লীগই এই ভূখণ্ডকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে দিয়েছে। স্বাধীনতার পর একটি যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশকে গড়ে তুলেছে এই আওয়ামী লীগ সরকারই। সাড়ে সাত কোটি মানুষ, এর মধ্যে এক কোটি শরণার্থী, তিনকোটি মানুষ গৃহহারা। তাদের অন্ন, বস্ত্র নিশ্চিতে বঙ্গবন্ধু নানা পরিকল্পনা হাতে নেন।’মুক্তিযুদ্ধে নেতাকর্মীদের নির্যাতনের কথা উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় কোথায় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ঘরবাড়ি আছে, তা খুঁজে খুঁজে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। স্বাধীনতার পরও অত্যাচার-নির্যাতন থেমে থাকেনি। ১৯৭৫-এ জাতির পিতাকে হত্যার পর আবারও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন নেমে আসে। তবে শত অত্যাচার-নির্যাতনেও আওয়ামী লীগ কখনও ভেঙে পড়েনি।
‘বরং আওয়ামী লীগের ওপর যত বেশি আঘাত এসেছে, আওয়ামী লীগ তত বেশি শক্তিশালী হয়েছে। হীরা যেমন যত বেশি কাটা হয় তত বেশি উজ্জ্বল হয়, আওয়ামী লীগও তেমন। আর এর পেছনে রয়েছে আওয়ামী লীগের মানুষের জন্য কর্তব্যবোধ, দায়িত্ববোধ, ভালোবাসা, ত্যাগ-তিতীক্ষা। এ জন্যই আওয়ামী লীগ ৭০ বছর ধরে টিকে আছে।
ঢাকা,সোমবার,২৪ জুন,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments
Download Nulled WordPress Themes
Download WordPress Themes Free
Download Premium WordPress Themes Free
Download Premium WordPress Themes Free
free download udemy paid course

সর্বশেষ আপডেট



» লেগো ও ট্রফি উন্মোচন হলো বঙ্গমাতা এশিয়ান সিনিয়র ওমেন্স সেন্ট্রাল জোন ইন্টার্নেশনাল ভলিবল চাম্পিয়নশিপ প্রতিযোগিতার

» দেশের ঘনবসতিপূর্ণ এলাকাসহ সব স্পর্শকাতর জায়গা থেকে মোবাইল টাওয়ার সরানোর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ

» রাজধানীর গাবতলী এলাকা থেকে নব্য জেএমবির তিন সদস্যকে গ্রেফতার

» টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস খাদে অন্তত ২৫ জন আহত

» যমুনা ফিউচার পার্কে যমুনা গ্রুপের বাংলাদেশ প্রথম হাইপার হোলসেল মার্কেট উদ্বোধন করলেন গণপূর্ত মন্ত্রী

» জলে-স্থলে-অন্তরীক্ষে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের বিজয়কেতন : তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ

» দুই মামলায় ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের ১০ দিন রিমান্ড মঞ্জুর

» আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি সাদাত গ্রেফতার

» মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গাইবান্ধার পাঁচ আসামির মৃত্যুদণ্ড

» সুনামগঞ্জে শিশু তুহিন হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তুহিনের মা বাদী হয়ে থানায় হত্যা মামলা করেছেন

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আওয়ামী লীগ দেশের মানুষের জন্য আত্মত্যাগের কারণেই বিগত ৭০ বছর ধরে টিকে আছে

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

‘আওয়ামী লীগ এই উপমহাদেশের রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে একটি প্রাচীন ও সুসংগঠিত দল। এই দলকে শত আঘাতেও ছিন্ন ভিন্ন করতে পারেনি। ভবিষ্যতেও পারবে না, ইনশা আল্লাহ’ বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।আজ সোমবার বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন।শেখ হাসিনা বলেন, ‘আওয়ামী লীগের শেকড় বাংলার মাটির সাথে এমনভাবে প্রোথিত, শত চেষ্টা করেও একে কেউ উপড়ে ফেলতে পারেনি। আর পারবেও না।’প্রধানমন্ত্রী দেশের জন্য ত্যাগের মানসিকতা নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদেরও এটাই মনে রাখতে হবে যে, আমাদের পূর্বসূরীরা যেভাবে আত্মত্যাগ করে গেছেন ঠিক প্রত্যেক নেতাকর্মীকে জাতির পিতার আদর্শ নিয়ে চলতে হবে।’
শৈশবের নৈতিক শিক্ষা ‘সিম্পল লিভিং হাই থিংকিং’-এর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘সাধারণ জীবনযাপনের মধ্য দিয়েই, ত্যাগের মধ্য দিয়েই অর্জন করা যায়। কারণ বঙ্গবন্ধু বলে গেছেন, মহৎ অর্জনের জন্য মহান ত্যাগের প্রয়োজন।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি এবং তাঁর সরকার বঙ্গবন্ধুর নীতি মেনে চলার কারণেই বাংলাদেশ আজকে উন্নয়নের উচ্চ শিখরে এগিয়ে যাচ্ছে।তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এই বাংলাদেশ ও বঙ্গভূমির একটা যোগসূত্র আছে। ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন স্বাধীনতা হারায় বাংলা। নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে পরাজিত করে ব্রিটিশ বেনিয়ারা এই ভূখণ্ড শাসন করেছে, মীরজাফরের ষড়যন্ত্রে। আমরা জানি এই মীরজাফর একটা গালিতে পরিণত হয়েছে। এরপর দুইশ’ বছর শাসন করেছে ব্রিটিশরা।
‘সেটাও ছিল ২৩ জুন, আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা লাভ করে ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন। এই আওয়ামী লীগই এই ভূখণ্ডকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে দিয়েছে। স্বাধীনতার পর একটি যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশকে গড়ে তুলেছে এই আওয়ামী লীগ সরকারই। সাড়ে সাত কোটি মানুষ, এর মধ্যে এক কোটি শরণার্থী, তিনকোটি মানুষ গৃহহারা। তাদের অন্ন, বস্ত্র নিশ্চিতে বঙ্গবন্ধু নানা পরিকল্পনা হাতে নেন।’মুক্তিযুদ্ধে নেতাকর্মীদের নির্যাতনের কথা উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় কোথায় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ঘরবাড়ি আছে, তা খুঁজে খুঁজে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। স্বাধীনতার পরও অত্যাচার-নির্যাতন থেমে থাকেনি। ১৯৭৫-এ জাতির পিতাকে হত্যার পর আবারও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন নেমে আসে। তবে শত অত্যাচার-নির্যাতনেও আওয়ামী লীগ কখনও ভেঙে পড়েনি।
‘বরং আওয়ামী লীগের ওপর যত বেশি আঘাত এসেছে, আওয়ামী লীগ তত বেশি শক্তিশালী হয়েছে। হীরা যেমন যত বেশি কাটা হয় তত বেশি উজ্জ্বল হয়, আওয়ামী লীগও তেমন। আর এর পেছনে রয়েছে আওয়ামী লীগের মানুষের জন্য কর্তব্যবোধ, দায়িত্ববোধ, ভালোবাসা, ত্যাগ-তিতীক্ষা। এ জন্যই আওয়ামী লীগ ৭০ বছর ধরে টিকে আছে।
ঢাকা,সোমবার,২৪ জুন,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com