দেশের ফুটবলের অন্যতম সেরা তারকা মোনেম মুন্নার ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

Spread the love

দেশের ফুটবলের অন্যতম সেরা তারকা মোনেম মুন্নার ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০০৫ সালের এই দিনে না ফেরার দেশে চলে যান ‘কিং ব্যাক’ খ্যাত এই তারকা।২০০৫ সালে কিডনির জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে চলে গেছেন বাংলাদেশের ফুটবলের সবচেয়ে উজ্জ্বল নক্ষত্র। এরআগে ১৯৯৯ সালে কিডনি রোগে আক্রান্ত হন তিনি। পরের বছর মার্চে বোন শামসুন নাহারের কিডনি তার দেহে প্রতিস্থাপন করা হয়। তবে তার ৫ বছর পর মৃত্যুবরণ করেন কিংবদন্তী এই ফুটবলার।

আশির দশকের মাঝামাঝি বাংলাদেশের ফুটবলে মুন্নার উত্থান। সালটা ১৯৮৪। প্রথম দুই মৌসুম মুক্তিযোদ্ধায়। এরপর এক মৌসুম ব্রাদার্স ইউনিয়নে। ১৯৮৭ সালে তিনি যোগ দেন আবাহনী শিবিরে। সেখানে পার করে দেন পুরো ফুটবল ক্যারিয়ার। তিনি ছিলেন জনপ্রিয় ফুটবলার। ১৯৯১ মৌসুমের দলবদলে তিনি আবাহনীতে খেলেছিলেন ২০ লাখ টাকা পারিশ্রমিকে, যা অনেক দিন পর্যন্ত বাংলাদেশেই শুধু নয়, গোটা উপ-মহাদেশে ছিল এক অনন্য রেকর্ড। জাতীয় দলের অধিনায়ক হয়েছিলেন একাধিকবার। ১৯৮৬ সালে সিউল এশিয়ান গেমস দিয়ে গায়ে জড়িয়েছিলেন জাতীয় দলের জার্সি। এরপর দু’-একটি ব্যতিক্রম বাদ দিলে তিনি জাতীয় দলে খেলেছেন টানা ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত। ১৯৯০ সালে বেইজিং এশিয়ান গেমসে মোনেম মুন্না প্রথমবারের মতো জাতীয় দলের অধিনায়কের আর্মব্যান্ড পরেছিলেন। তার নেতৃত্বেই ১৯৯৫ সালে বাংলাদেশ মিয়ানমারে চার জাতি প্রতিযোগিতার শিরোপা জয় করেছিল। আন্তর্জাতিক ফুটবলে যা বাংলাদেশের প্রথম কোনো শিরোপা।
ক্রীড়া ডেস্ক,বুধবার,১২ ফেব্রুয়ারি,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

সর্বশেষ আপডেট



» প্রায় তিন ঘন্টার চেষ্টায় গাজীপুরের টঙ্গীতে তুলার গুদামের আগুন নিয়ন্ত্রণে

» বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ সূচকে ৬ ধাপ অগ্রগতি হয়ে বাংলাদেশ এখন ৩১ নম্বরে

» টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে কাভার্ডভ্যান- হিউম্যানহলার সংঘর্ষে ৪ নারী শ্রমিক নিহত

» গাজীপুরের টঙ্গীর মিল গেট এলাকায় তুলার গুদামে আগুন,নিয়ন্ত্রণে ৬ ইউনিট

» মাতৃভাষার অপমান কোনোভাবে সহ্য করা যায় না-প্রধানমন্ত্রী

» বিটিআরসিকে এক হাজার কোটি টাকা দিতে রাজি হয়েছে গ্রামীণফোন

» এসই ফাউন্ডেশন ইউকের এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

» প্রয়োজনিয়তার তাগিদে গ্রামগঞ্জের প্রত্যেকটি ঘরে ঘরে ক্যারাতে তৈরী হোক …চিত্র নায়ক রুবেল

» নিখোঁজ জেলের লাশ উদ্ধার

» দুই লাখ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল পুড়িয়ে ধ্বংস

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ খ্রিষ্টাব্দ, ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দেশের ফুটবলের অন্যতম সেরা তারকা মোনেম মুন্নার ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

দেশের ফুটবলের অন্যতম সেরা তারকা মোনেম মুন্নার ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০০৫ সালের এই দিনে না ফেরার দেশে চলে যান ‘কিং ব্যাক’ খ্যাত এই তারকা।২০০৫ সালে কিডনির জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে চলে গেছেন বাংলাদেশের ফুটবলের সবচেয়ে উজ্জ্বল নক্ষত্র। এরআগে ১৯৯৯ সালে কিডনি রোগে আক্রান্ত হন তিনি। পরের বছর মার্চে বোন শামসুন নাহারের কিডনি তার দেহে প্রতিস্থাপন করা হয়। তবে তার ৫ বছর পর মৃত্যুবরণ করেন কিংবদন্তী এই ফুটবলার।

আশির দশকের মাঝামাঝি বাংলাদেশের ফুটবলে মুন্নার উত্থান। সালটা ১৯৮৪। প্রথম দুই মৌসুম মুক্তিযোদ্ধায়। এরপর এক মৌসুম ব্রাদার্স ইউনিয়নে। ১৯৮৭ সালে তিনি যোগ দেন আবাহনী শিবিরে। সেখানে পার করে দেন পুরো ফুটবল ক্যারিয়ার। তিনি ছিলেন জনপ্রিয় ফুটবলার। ১৯৯১ মৌসুমের দলবদলে তিনি আবাহনীতে খেলেছিলেন ২০ লাখ টাকা পারিশ্রমিকে, যা অনেক দিন পর্যন্ত বাংলাদেশেই শুধু নয়, গোটা উপ-মহাদেশে ছিল এক অনন্য রেকর্ড। জাতীয় দলের অধিনায়ক হয়েছিলেন একাধিকবার। ১৯৮৬ সালে সিউল এশিয়ান গেমস দিয়ে গায়ে জড়িয়েছিলেন জাতীয় দলের জার্সি। এরপর দু’-একটি ব্যতিক্রম বাদ দিলে তিনি জাতীয় দলে খেলেছেন টানা ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত। ১৯৯০ সালে বেইজিং এশিয়ান গেমসে মোনেম মুন্না প্রথমবারের মতো জাতীয় দলের অধিনায়কের আর্মব্যান্ড পরেছিলেন। তার নেতৃত্বেই ১৯৯৫ সালে বাংলাদেশ মিয়ানমারে চার জাতি প্রতিযোগিতার শিরোপা জয় করেছিল। আন্তর্জাতিক ফুটবলে যা বাংলাদেশের প্রথম কোনো শিরোপা।
ক্রীড়া ডেস্ক,বুধবার,১২ ফেব্রুয়ারি,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com