সন্তানের সাথে খারাপ আচরণ এবং মারধরের কারনে কি হতে পারে

Spread the love

আপনার সন্তানটি কিছুতেই কোনো কথা শোনে না। যাই বলেন না কেন, সব সময়েই যেন সেটার উল্টোটাই করবে। আর তাই মারের উপর ঔষধ নাই’ এই ফর্মূলায় চলছেন আপনি। কথা না শুনলেই হয় তাকে বাথরুমে আটকে রাখেন অথবা বেদম মার দেন। প্রতিদিনের টুকটাক চড় থাপ্পড় তো আছেই।
১। মানসিক ভারসাম্য এলোমেলো হয়ে যায়ঃ-
ক্রমাগত নির্যাতিত হলে আপনার সন্তানের মানসিক ভারসাম্য এলোমেলো হয়ে যায়। নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে ভুগতে এক পর্যায়ে সে প্রচন্ড মানসিক চাপে ভোগে। এভাবে মানসিক চাপে থাকতে থাকতে সে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। ফলে নিয়মিত মারধোর করলে আপনার সন্তান সারা জীবনের জন্য মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলতে পারে।
২। মা বাবার প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা নষ্ট হয়ে যায়ঃ-
সন্তানকে নিয়মিত মারধোর করলে বাবা মায়ের প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাবোধ নষ্ট হয়ে যায়। কথায় কথায় মার দিলে বাবা মা কে নিজের অনেক দূরের কেউ ভাবতে আরম্ভ করে সন্তানরা। বাবা মায়ের প্রতি মানসিক টান একেবারেই থাকে না এধরনের নির্যাতিত শিশুদের।
৩। নিজেকে একলা ভাবে ও বিষণ্ণতায় ভোগেঃ-
যেসব শিশুরা নিয়মিত বাবা মায়ের কাছে শারীরিক কিংবা মানসিক ভাবে নির্যাতনের স্বীকার হয় তাঁরা সাধারণত নিজেদেরকে একা ভাবে এবং প্রচন্ড বিষন্নতায় ভোগে। বাবা-মাকে আপন করে না পাওয়া ও নির্যাতনের ভয়ে কুঁকড়ে থাকে এসব শিশুরা।
৪। লেখাপড়ায় খারাপ হয়ে যায়ঃ-
যেসব শিশুরা খুব ছোট বেলা থেকেই বাবা মায়ের অতিরিক্ত কড়া শাসন ও নির্যাতনের মধ্যে বেড়ে উঠেছে তাঁরা সাধারণত লেখাপড়ায় খারাপ হয়। আর এর পেছনের কারণ হলো কিছুতেই লেখাপড়ায় মন বসাতে পারে না এই শিশুরা। সারাক্ষণ আতঙ্ক ও হতাশার কারণে পড়ার টেবিলে বসে সারাদিন পড়লেও কিছু মনে রাখতে পারে না তাঁরা। আর আত্মবিশ্বাস কমে যায় বলে পরীক্ষার খাতাতেও ঠিক মত লিখতে পারে না এসব শিশু।
৫। কেউ খুব হিংস্র হয়ে বেড়ে ওঠে, কেউ খুব ভীতুঃ-
ছোট বেলা থেকেই বাবা মায়ের দ্বারা শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের স্বীকার শিশুরা অধিকাংশই হিংস্র হয়ে বেড়ে ওঠে। আবার কিছু সংখ্যক শিশু হয় খুব ভীতু। জীবনের চলার পথে প্রতিটি পা এগুতেও খুব বেশি ভয় পায় তাঁরা। ফলে সব সময়েই সবার পেছনে পড়ে থাকে।
৬। মা বাবার প্রতি প্রতিশোধ নেয়ার ইচ্ছা তৈরি হয়ঃ-
আজকে আপনি সন্তানকে নির্যাতন করছেন। কিন্তু মনে রাখবেন একদিন সন্তানও আপনার ওপরে এটার শোধ নেবে। কারণ আপনার সন্তানের কচি মনে আপনিই এই বীজ বুনে দিচ্ছেন। যেসব শিশুদেরকে ছোট বেলাতে বাবা মায়েরা অতিরিক্ত শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেছে তাঁরা সাধারণত বড় হয়ে বাবা মাকে ঘৃণা করতে শেখে এবং একপর্যায়ে বাবা মায়ের সাথে হিংস্র আচরণ করে।
৭। পৃথিবী সম্পর্কে খারাপ ধারণা জন্মে যায়ঃ-
আপনার শিশুটি এই সুন্দর পৃথিবীতে জন্মেছে। সে যত বড় হবে পৃথিবী সম্পর্কে তার ধারণা ও জ্ঞান তত বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু আপনি যদি তাকে ছোট বেলা থেকেই মারধোর করেন এবং মানসিক নির্যাতন করেন তাহলে তার শৈশব কৈশোর নষ্ট হবে। ধীরে ধীরে পৃথিবী সম্পর্কে খারাপ ধারণা জন্মে যাবে তার মনে।
মঞ্জুর আহমেদ শামিম,প্রতিনিধিঃ
লাইফস্টাইল,বুধবার,০১ জুন, এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments
Download WordPress Themes
Free Download WordPress Themes
Download Premium WordPress Themes Free
Premium WordPress Themes Download
online free course

সর্বশেষ আপডেট



» ২০৫০ সালে বিদ্যুৎ প্রধান নবায়নযোগ্য জ্বালানি হিসেবে পরিগণিত হবে : জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা

» ভোলার ঘটনা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ‌্যমে রঙ ছড়ালে কঠোর ব‌্যবস্থা -তথ‌্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি

» পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত

» জাপানের ১২৬তম সম্রাট হিসেবে সিংহাসনে বসেছেন নারুহিতো

» বাংলাদেশ ক্রিকেটারদের ১১ দফা দাবিতে ডাকা ধর্মঘটের বিষয়টি চক্রান্ত হিসেবে দেখছেন-নাজমুল হাসান পাপন

» গাড়ির নকশা পরিবর্তন করে রাস্তায় নামানো হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে- প্রধানমন্ত্রী

» ভোলার পুলিশ সুপার (এসপি) ফেসবুক আইডি হ্যাক থানায় সাধারণ ডায়েরি

» অবশেষে বসল পদ্মা সেতুর ১৫তম স্প্যান দৃশ্যমান হলো সোয়া দুই কিলোমিটার

» বাংলাদেশ ডাক বিভাগের ডিজিটাল লেনদেন ১ মিনিটে নগদ অ্যাকাউন্ট’ সেবা উদ্বোধন করেছেন সজীব ওয়াজেদ জয়

» ঢাকায় বেজার অন স্টপ সার্ভিস সেন্টার ওএসএস উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী বেসরকারি বিনিয়োগ ও শিল্প বিষয়ক উপদেষ্টা

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সন্তানের সাথে খারাপ আচরণ এবং মারধরের কারনে কি হতে পারে

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

আপনার সন্তানটি কিছুতেই কোনো কথা শোনে না। যাই বলেন না কেন, সব সময়েই যেন সেটার উল্টোটাই করবে। আর তাই মারের উপর ঔষধ নাই’ এই ফর্মূলায় চলছেন আপনি। কথা না শুনলেই হয় তাকে বাথরুমে আটকে রাখেন অথবা বেদম মার দেন। প্রতিদিনের টুকটাক চড় থাপ্পড় তো আছেই।
১। মানসিক ভারসাম্য এলোমেলো হয়ে যায়ঃ-
ক্রমাগত নির্যাতিত হলে আপনার সন্তানের মানসিক ভারসাম্য এলোমেলো হয়ে যায়। নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে ভুগতে এক পর্যায়ে সে প্রচন্ড মানসিক চাপে ভোগে। এভাবে মানসিক চাপে থাকতে থাকতে সে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। ফলে নিয়মিত মারধোর করলে আপনার সন্তান সারা জীবনের জন্য মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলতে পারে।
২। মা বাবার প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা নষ্ট হয়ে যায়ঃ-
সন্তানকে নিয়মিত মারধোর করলে বাবা মায়ের প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাবোধ নষ্ট হয়ে যায়। কথায় কথায় মার দিলে বাবা মা কে নিজের অনেক দূরের কেউ ভাবতে আরম্ভ করে সন্তানরা। বাবা মায়ের প্রতি মানসিক টান একেবারেই থাকে না এধরনের নির্যাতিত শিশুদের।
৩। নিজেকে একলা ভাবে ও বিষণ্ণতায় ভোগেঃ-
যেসব শিশুরা নিয়মিত বাবা মায়ের কাছে শারীরিক কিংবা মানসিক ভাবে নির্যাতনের স্বীকার হয় তাঁরা সাধারণত নিজেদেরকে একা ভাবে এবং প্রচন্ড বিষন্নতায় ভোগে। বাবা-মাকে আপন করে না পাওয়া ও নির্যাতনের ভয়ে কুঁকড়ে থাকে এসব শিশুরা।
৪। লেখাপড়ায় খারাপ হয়ে যায়ঃ-
যেসব শিশুরা খুব ছোট বেলা থেকেই বাবা মায়ের অতিরিক্ত কড়া শাসন ও নির্যাতনের মধ্যে বেড়ে উঠেছে তাঁরা সাধারণত লেখাপড়ায় খারাপ হয়। আর এর পেছনের কারণ হলো কিছুতেই লেখাপড়ায় মন বসাতে পারে না এই শিশুরা। সারাক্ষণ আতঙ্ক ও হতাশার কারণে পড়ার টেবিলে বসে সারাদিন পড়লেও কিছু মনে রাখতে পারে না তাঁরা। আর আত্মবিশ্বাস কমে যায় বলে পরীক্ষার খাতাতেও ঠিক মত লিখতে পারে না এসব শিশু।
৫। কেউ খুব হিংস্র হয়ে বেড়ে ওঠে, কেউ খুব ভীতুঃ-
ছোট বেলা থেকেই বাবা মায়ের দ্বারা শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের স্বীকার শিশুরা অধিকাংশই হিংস্র হয়ে বেড়ে ওঠে। আবার কিছু সংখ্যক শিশু হয় খুব ভীতু। জীবনের চলার পথে প্রতিটি পা এগুতেও খুব বেশি ভয় পায় তাঁরা। ফলে সব সময়েই সবার পেছনে পড়ে থাকে।
৬। মা বাবার প্রতি প্রতিশোধ নেয়ার ইচ্ছা তৈরি হয়ঃ-
আজকে আপনি সন্তানকে নির্যাতন করছেন। কিন্তু মনে রাখবেন একদিন সন্তানও আপনার ওপরে এটার শোধ নেবে। কারণ আপনার সন্তানের কচি মনে আপনিই এই বীজ বুনে দিচ্ছেন। যেসব শিশুদেরকে ছোট বেলাতে বাবা মায়েরা অতিরিক্ত শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেছে তাঁরা সাধারণত বড় হয়ে বাবা মাকে ঘৃণা করতে শেখে এবং একপর্যায়ে বাবা মায়ের সাথে হিংস্র আচরণ করে।
৭। পৃথিবী সম্পর্কে খারাপ ধারণা জন্মে যায়ঃ-
আপনার শিশুটি এই সুন্দর পৃথিবীতে জন্মেছে। সে যত বড় হবে পৃথিবী সম্পর্কে তার ধারণা ও জ্ঞান তত বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু আপনি যদি তাকে ছোট বেলা থেকেই মারধোর করেন এবং মানসিক নির্যাতন করেন তাহলে তার শৈশব কৈশোর নষ্ট হবে। ধীরে ধীরে পৃথিবী সম্পর্কে খারাপ ধারণা জন্মে যাবে তার মনে।
মঞ্জুর আহমেদ শামিম,প্রতিনিধিঃ
লাইফস্টাইল,বুধবার,০১ জুন, এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com