করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলাদেশে

নতুন আক্রান্ত মোট আক্রান্ত সুস্থ মৃত্যু
১১৬৬ ৩৬,৭৫১ ৭৫৭৯ ৫২২

একুশে বইমেলায় নৌ পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফরিদা রানুর প্রথম কবিতার বই ভালোবাসা কথা কয় পাওয়া যাচ্ছে

ঢাকা : প্রেমের ক্ষেত্রে নিয়ম ভেঙে অমর হয়েছেন লাইলি-মজনু, শীরি-ফরহাদ। ভালোবাসার মানুষটি পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেও এখনো ‘ভালোবাসি’ ‘ভালোবাসি’ বলে ওপার থেকে ডাকে। ভালোবাসার এমন অমরত্ব নিয়ে এবার অমর একুশের বইমেলায় পাওয়া যাচ্ছে ফরিদা রানুর প্রথম কবিতার বই ‘ভালোবাসা কথা কয়’। ফরিদা রানু নৌপুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার।

নৌ পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফরিদা রানুর বইটি প্রকাশ করেছে সময় প্রকাশন। আর এই বইটি স্টল ৭ নাম্বার পাওয়া যাবে। এই বইটির প্রকাশক হচ্ছেন ফরিদ আহমেদ । এই বইটির প্রচ্ছদ এঁকেছেন ধ্রুব এষ।এই বইটির প্রচ্ছদ আলোকচিত্রী হচ্ছেন কামরুল হাসান মিথুন।

এর আগে অন্য কোন বই লিখেছেন কিনা সেটা জানতে চাইলে কবি ফরিদা রানু বলেন, এর আগে ‘নৈঃশব্দের ভালোবাসা’ নামে গত বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে তার সম্পাদিত একটি নাটকের বই। প্রয়াত স্বামী মরহুম শফিকুল ইসলাম নাটকটির লেখক ছিলেন। অকাল প্রয়াত নাট্যকার ব্যক্তি জীবনে অনেক না বলা কথা রেখে গেছেন। সময়ে সময়ে তিনি কবিকে জানান দেন, তিনি এখনও তার পাশেই আছেন।

ফরিদা তার প্রয়াত স্বামীর বিদেহী আত্মার জন্য সবার কাছে দোয়া এবং ভালোবাসা কামনা করেছেন।

এই বইটি সম্পর্কে জানতে চাইলে নৌ পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কবি ফরিদা জানান, ‘ভালোবাসা কথা কয়’ বইটি একজন স্ত্রীর তার প্রিয়জনের প্রতি লেখা কিছু চিঠি, কিছু কথোপকথন। আমরা পাশাপাশি থেকেও অপর পাশের মানুষের ভালোবাসাগুলো অনুভব করেতে পারি না। পারি না হৃদয়ের ফ্রেমে বন্দী করে রাখতে সতেজ, শুভ্র ভালোবাসা। এই সীমিত সময়ের জীবনে কেউ কেউ হাজারো সীমাবদ্ধতার মাঝে নিজেকে টিকিয়ে রাখতে পারে না। কেউ কেউ রেখে যায় অতৃপ্ত সমাপ্তি। বইটির মূল উপজীব্য হলো প্রস্ফূটিত হওয়ার আগেই অকালে ঝরে যাওয়া ভালোবাসা।

কবি ফরিদা রানু বলেন, প্রতিটি মানুষের জীবনে প্রেম বা ভালোবাসা আসে। প্রকৃত প্রেমিকরা কখনো ভালোবাসা হারিয়ে যেতে দেয় না। স্মৃতির পাতায়, মনের খাতায়, লেখনীতে সেই ভালোবাসাকে ধরে রাখে।

উল্লেখ্য,১৯৮৪ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ি থানায় ফরিদা রানুর জন্ম। বাবা মো আব্দুর রাজ্জাক পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রকৌশলী এবং মা নিলুফা ইয়াসমিন সাধারণ গৃহিণী। তবে মেয়েদের মানুষের মতো মানুষ করাই ছিল তাদের ব্রত। বাবার চাকরির সূত্র ধরে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পড়াশোনা টাঙ্গাইলে। পরে ইংরেজি সাহিত্যে ইডেন সরকারি কলেজ থেকে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন।
মোঃ মাসুদ হাসান মোল্লা রিদম,
ঢাকা,মঙ্গলবার,১৮ ফেব্রুয়ারি,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

সর্বশেষ আপডেট



» ঈদের দিনেও বিএনপি সমালোচনা আর বিদ্বেষের রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি

» সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে দুইজন ও হবিগঞ্জে ১ নিহত

» যমুনা নদীতে যাত্রীবোঝাই নৌকাডুবির ঘটনায় তিনজনের মরদেহ উদ্ধার।

» কাঁচপুরে অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় দুই রিকশাচালক নিহত

» বরগুনায় প্রকাশ্যে পিটিয়ে এসএসসি শিক্ষার্থীকে হত্যা ।

» নতুন করে আরও ১১৬৬ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত,মৃত্যু ২১ জন

» জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকারের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম মারা গেছেন

» সানবিমস স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ নিলুফার মঞ্জুর মারা গেছেন

» প্রবীণ রাজনীতিবিদ,সাবেক এমপি ও শিক্ষক এমএ মতিন মারা গেছেন

» প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২৭ মে ২০২০ খ্রিষ্টাব্দ, ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

একুশে বইমেলায় নৌ পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফরিদা রানুর প্রথম কবিতার বই ভালোবাসা কথা কয় পাওয়া যাচ্ছে

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

ঢাকা : প্রেমের ক্ষেত্রে নিয়ম ভেঙে অমর হয়েছেন লাইলি-মজনু, শীরি-ফরহাদ। ভালোবাসার মানুষটি পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেও এখনো ‘ভালোবাসি’ ‘ভালোবাসি’ বলে ওপার থেকে ডাকে। ভালোবাসার এমন অমরত্ব নিয়ে এবার অমর একুশের বইমেলায় পাওয়া যাচ্ছে ফরিদা রানুর প্রথম কবিতার বই ‘ভালোবাসা কথা কয়’। ফরিদা রানু নৌপুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার।

নৌ পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফরিদা রানুর বইটি প্রকাশ করেছে সময় প্রকাশন। আর এই বইটি স্টল ৭ নাম্বার পাওয়া যাবে। এই বইটির প্রকাশক হচ্ছেন ফরিদ আহমেদ । এই বইটির প্রচ্ছদ এঁকেছেন ধ্রুব এষ।এই বইটির প্রচ্ছদ আলোকচিত্রী হচ্ছেন কামরুল হাসান মিথুন।

এর আগে অন্য কোন বই লিখেছেন কিনা সেটা জানতে চাইলে কবি ফরিদা রানু বলেন, এর আগে ‘নৈঃশব্দের ভালোবাসা’ নামে গত বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে তার সম্পাদিত একটি নাটকের বই। প্রয়াত স্বামী মরহুম শফিকুল ইসলাম নাটকটির লেখক ছিলেন। অকাল প্রয়াত নাট্যকার ব্যক্তি জীবনে অনেক না বলা কথা রেখে গেছেন। সময়ে সময়ে তিনি কবিকে জানান দেন, তিনি এখনও তার পাশেই আছেন।

ফরিদা তার প্রয়াত স্বামীর বিদেহী আত্মার জন্য সবার কাছে দোয়া এবং ভালোবাসা কামনা করেছেন।

এই বইটি সম্পর্কে জানতে চাইলে নৌ পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কবি ফরিদা জানান, ‘ভালোবাসা কথা কয়’ বইটি একজন স্ত্রীর তার প্রিয়জনের প্রতি লেখা কিছু চিঠি, কিছু কথোপকথন। আমরা পাশাপাশি থেকেও অপর পাশের মানুষের ভালোবাসাগুলো অনুভব করেতে পারি না। পারি না হৃদয়ের ফ্রেমে বন্দী করে রাখতে সতেজ, শুভ্র ভালোবাসা। এই সীমিত সময়ের জীবনে কেউ কেউ হাজারো সীমাবদ্ধতার মাঝে নিজেকে টিকিয়ে রাখতে পারে না। কেউ কেউ রেখে যায় অতৃপ্ত সমাপ্তি। বইটির মূল উপজীব্য হলো প্রস্ফূটিত হওয়ার আগেই অকালে ঝরে যাওয়া ভালোবাসা।

কবি ফরিদা রানু বলেন, প্রতিটি মানুষের জীবনে প্রেম বা ভালোবাসা আসে। প্রকৃত প্রেমিকরা কখনো ভালোবাসা হারিয়ে যেতে দেয় না। স্মৃতির পাতায়, মনের খাতায়, লেখনীতে সেই ভালোবাসাকে ধরে রাখে।

উল্লেখ্য,১৯৮৪ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ি থানায় ফরিদা রানুর জন্ম। বাবা মো আব্দুর রাজ্জাক পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রকৌশলী এবং মা নিলুফা ইয়াসমিন সাধারণ গৃহিণী। তবে মেয়েদের মানুষের মতো মানুষ করাই ছিল তাদের ব্রত। বাবার চাকরির সূত্র ধরে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পড়াশোনা টাঙ্গাইলে। পরে ইংরেজি সাহিত্যে ইডেন সরকারি কলেজ থেকে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন।
মোঃ মাসুদ হাসান মোল্লা রিদম,
ঢাকা,মঙ্গলবার,১৮ ফেব্রুয়ারি,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক-কাজী আবু তাহের মো. নাছির।
নির্বাহী সম্পাদক,আফতাব খন্দকার (রনি)

ফোন:+88 01714043198

গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

© Copyright BY HBnews24.Com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com

Translate »