করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলাদেশে

নতুন আক্রান্ত মোট আক্রান্ত সুস্থ মৃত্যু
২১৮৩ ১৯,৭৩,৭৮৫ ১৯,০৭,৫০৯ ২৯,১৪৯

পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনার ক্ষেত্রে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তাতে বাধা না দিতে আহ্বান অর্থমন্ত্রীর

দেশের অর্থ বিদেশে পাচার হচ্ছে। তবে কী পরিমাণ অর্থ পাচার করা হয়েছে, তা বলা যাচ্ছে না। পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনার ক্ষেত্রে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তাতে বাধা না দিতে আহ্বান জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল।

শুক্রবার (১০ জুন) বিকেলে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ আহ্বান জানান।

মন্ত্রী বলেন, যদি টাকা পাচার হয়ে থাকে; সেটা এদেশের মানুষের হক। আমরা এগুলো ফেরত আনার চেষ্টা করছি। সেখানে বাধা দিয়েন না। যদি বাধা দেন তাহলে টাকাগুলো দেশে ফেরত আসবে না।

পাচার হওয়া টাকা ফিরিয়ে আনা কতটা যুক্তি সঙ্গত- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, কে বলেছে টাকা পাচার হয় না। সুটকেসেই হোক, বা অন্য কোনো মাধ্যমেই হোক, ডিজিটাল টুলস ব্যবহার করে টাকা পাচার হচ্ছে। যাতে টাকা পাচার হতে না পারে সে ব্যবস্থাই করছি। জার্মানি, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্সসহ অনেক দেশ এ ব্যবস্থা নিয়েছে।

তিনি বলেন, কখনো কখনো মিস ম্যাচ হয়ে যায়, বিভিন্ন কারণে টাকা পাচার হয়ে যায়। টাকা পাচার করে না সে কথা কখনো বলি নাই। যেগুলো বলা হচ্ছে, সেগুলো প্রমাণ ছাড়া বললে মামলায় আসে না।

মন্ত্রী আরও বলেন, এ মুহূর্তে অনেক অভিযোগ আছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কোর্টে মামলা চলছে। অনেককেই সাজা পেয়ে জেলে আছেন। সরকার নিশ্চুপ থাকে না, সরকার তার কাজ করে যাচ্ছে। মিডিয়াতে যদি কিছু রিপোর্ট হয় সেটা নিয়েও আমরা ব্যবস্থা নিতে পারি।

বিশ্বের ১৭টি দেশ অ্যামেনিস্টি দিয়ে টাকা ফেরত এনেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমেরিকা, কানাডা, যুক্তরাজ্য, জার্মানি করেছে। এতে করে যারা ট্যাক্স দিচ্ছেন তাদের সম্মান কমবে না। যে ঘুষ দেয় ও ঘুষ নেয় দুইজনেরই স্থান জাহান্নামে। আমরা জাহান্নামে যাওয়ার জন্য কাজ করি না। আমরা দেশের মানুষের ভালোবাসা পেতে চাই। তাই দায়বদ্ধতা মমত্ববোধ থেকে কাজ করি। তাই বলছি যদি টাকা পাচার হয়ে থাকে সেটা ফেরত আসবে। আমরা সেই চেষ্টাই করছি।

কালো টাকা সাদা করার যে সুযোগ দেওয়া হয়েছে সেখানে আপনারা কতটুকু সফল হবেন জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা কালো টাকা না বলে অ-প্রদর্শিত টাকা বলি। আমরা জায়গা-জমি বেচা-কেনা করি; সেখানে যে দামে কিনি সে পরিমাণ মূল্য দেখাতে পারি না। যে টাকাটা দেখাতে পারি না সে টাকাটা অ-প্রদর্শিত টাকা কিন্তু এ টাকা কালো টাকা হিসেবে বলছি। সে টাকাই আমরা নিয়ে আসতে চাচ্ছি।

মোবাইল, কম্পিউটার ও ল্যাপটপ এ তিন পণ্যের পার্টস আমদানিতে শুল্ক আরোপ করেছেন এতে পণ্যগুলোর দাম বাড়বে। তাহলে আইটি ক্ষেত্রে কতটুকু সফলতা অর্জন হবে বলে মনে করছেন প্রশ্ন করলে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা গত কয়েক বছর থেকে একটি বিষয়ে কাজ করছি সেটা হলো মেড ইন বাংলাদেশ। দুই-তিন দেশের মধ্যে যদি কোনো পণ্য উৎপাদিত হয় তাহলে সেখানে যদি আমাদের উৎপাদনশীলতার লেবেল লাগে সেটা ভালো। যদি মান ভালো হয় ব্যবহার করতে পারি। আমরা সে সব পণ্য উৎপাদনে আরও অগ্রাধিকার দিতে হবে। সে সকল জিনিস বিদেশ থেকে আনবো না। সে বিষয়টি আমরা বাজেটে ফুটিয়ে তুলেছি। দেশের ভিতরে যেসব পণ্য উৎপাদন হবে সেটা দেশ থেকে নিতে হবে। আর সেগুলো যাতে বিদেশ থেকে আসতে না পারে সে বিষয়ে নিরুৎসাহিত করছি। এভাবেই মেড ইন বাংলাদেশের কনসেপ্ট এগিয়ে নিয়ে যাবো।
ঢাকা,শুক্রবার ১০ জুন,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

সর্বশেষ আপডেট



» এক্সপ্রেসওয়েতে টোল আদায় শুরু

» হলি আর্টিজান হামলার ষষ্ঠ বার্ষিকী উপলক্ষে দীপ্ত শপথ ভাস্কর্যে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন র‍্যাব ডিজি

» রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় পৃথক দুই জায়গায় লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে

» হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা

» আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু

» Cougars Looking For Young – Casual Cougar dating

» ২০২২-২৩ অর্থ বছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পাস

» আগামী ১০ জুলাই, রোববার দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে

» সাভারের আশুলিয়ায় শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: জিতুর ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

» নতুন করে আরও ২১৮৩ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত, চার জনের মৃত্যু হয়েছে।

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

ফোন:+88 01714043198

প্রধান কার্যালয়: গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

ব্রাঞ্চ অফিস: ২৪৭ পশ্চিম মনিপুর, ২য় তলা, মিরপুর-২, ঢাকা -১২১৬।

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ শুক্রবার, ১ জুলাই ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ, ১৭ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনার ক্ষেত্রে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তাতে বাধা না দিতে আহ্বান অর্থমন্ত্রীর




দেশের অর্থ বিদেশে পাচার হচ্ছে। তবে কী পরিমাণ অর্থ পাচার করা হয়েছে, তা বলা যাচ্ছে না। পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনার ক্ষেত্রে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তাতে বাধা না দিতে আহ্বান জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল।

শুক্রবার (১০ জুন) বিকেলে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ আহ্বান জানান।

মন্ত্রী বলেন, যদি টাকা পাচার হয়ে থাকে; সেটা এদেশের মানুষের হক। আমরা এগুলো ফেরত আনার চেষ্টা করছি। সেখানে বাধা দিয়েন না। যদি বাধা দেন তাহলে টাকাগুলো দেশে ফেরত আসবে না।

পাচার হওয়া টাকা ফিরিয়ে আনা কতটা যুক্তি সঙ্গত- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, কে বলেছে টাকা পাচার হয় না। সুটকেসেই হোক, বা অন্য কোনো মাধ্যমেই হোক, ডিজিটাল টুলস ব্যবহার করে টাকা পাচার হচ্ছে। যাতে টাকা পাচার হতে না পারে সে ব্যবস্থাই করছি। জার্মানি, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্সসহ অনেক দেশ এ ব্যবস্থা নিয়েছে।

তিনি বলেন, কখনো কখনো মিস ম্যাচ হয়ে যায়, বিভিন্ন কারণে টাকা পাচার হয়ে যায়। টাকা পাচার করে না সে কথা কখনো বলি নাই। যেগুলো বলা হচ্ছে, সেগুলো প্রমাণ ছাড়া বললে মামলায় আসে না।

মন্ত্রী আরও বলেন, এ মুহূর্তে অনেক অভিযোগ আছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কোর্টে মামলা চলছে। অনেককেই সাজা পেয়ে জেলে আছেন। সরকার নিশ্চুপ থাকে না, সরকার তার কাজ করে যাচ্ছে। মিডিয়াতে যদি কিছু রিপোর্ট হয় সেটা নিয়েও আমরা ব্যবস্থা নিতে পারি।

বিশ্বের ১৭টি দেশ অ্যামেনিস্টি দিয়ে টাকা ফেরত এনেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমেরিকা, কানাডা, যুক্তরাজ্য, জার্মানি করেছে। এতে করে যারা ট্যাক্স দিচ্ছেন তাদের সম্মান কমবে না। যে ঘুষ দেয় ও ঘুষ নেয় দুইজনেরই স্থান জাহান্নামে। আমরা জাহান্নামে যাওয়ার জন্য কাজ করি না। আমরা দেশের মানুষের ভালোবাসা পেতে চাই। তাই দায়বদ্ধতা মমত্ববোধ থেকে কাজ করি। তাই বলছি যদি টাকা পাচার হয়ে থাকে সেটা ফেরত আসবে। আমরা সেই চেষ্টাই করছি।

কালো টাকা সাদা করার যে সুযোগ দেওয়া হয়েছে সেখানে আপনারা কতটুকু সফল হবেন জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা কালো টাকা না বলে অ-প্রদর্শিত টাকা বলি। আমরা জায়গা-জমি বেচা-কেনা করি; সেখানে যে দামে কিনি সে পরিমাণ মূল্য দেখাতে পারি না। যে টাকাটা দেখাতে পারি না সে টাকাটা অ-প্রদর্শিত টাকা কিন্তু এ টাকা কালো টাকা হিসেবে বলছি। সে টাকাই আমরা নিয়ে আসতে চাচ্ছি।

মোবাইল, কম্পিউটার ও ল্যাপটপ এ তিন পণ্যের পার্টস আমদানিতে শুল্ক আরোপ করেছেন এতে পণ্যগুলোর দাম বাড়বে। তাহলে আইটি ক্ষেত্রে কতটুকু সফলতা অর্জন হবে বলে মনে করছেন প্রশ্ন করলে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা গত কয়েক বছর থেকে একটি বিষয়ে কাজ করছি সেটা হলো মেড ইন বাংলাদেশ। দুই-তিন দেশের মধ্যে যদি কোনো পণ্য উৎপাদিত হয় তাহলে সেখানে যদি আমাদের উৎপাদনশীলতার লেবেল লাগে সেটা ভালো। যদি মান ভালো হয় ব্যবহার করতে পারি। আমরা সে সব পণ্য উৎপাদনে আরও অগ্রাধিকার দিতে হবে। সে সকল জিনিস বিদেশ থেকে আনবো না। সে বিষয়টি আমরা বাজেটে ফুটিয়ে তুলেছি। দেশের ভিতরে যেসব পণ্য উৎপাদন হবে সেটা দেশ থেকে নিতে হবে। আর সেগুলো যাতে বিদেশ থেকে আসতে না পারে সে বিষয়ে নিরুৎসাহিত করছি। এভাবেই মেড ইন বাংলাদেশের কনসেপ্ট এগিয়ে নিয়ে যাবো।
ঢাকা,শুক্রবার ১০ জুন,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

ফোন:+88 01714043198

প্রধান কার্যালয়: গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২
Email: hbnews24@gmail.com

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

ব্রাঞ্চ অফিস: ২৪৭ পশ্চিম মনিপুর, ২য় তলা, মিরপুর-২, ঢাকা -১২১৬।

© Hbnews24 || Phone: +8801714043198, email: hbnews24@gmail.com