করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলাদেশে

নতুন আক্রান্ত মোট আক্রান্ত সুস্থ মৃত্যু
১১ ২০,৩৬,৫৬৭ ১৯,৮৫,৭৬২ ২৯,৪৩৩

নন্দিত কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্রকার হুমায়ূন আহমেদ নেই দশ বছর।

নন্দিত কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্রকার হুমায়ূন আহমেদ নেই দশ বছর।
মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) তার দশম মৃত্যুবার্ষিকী। অসংখ্য ভক্তকে কাঁদিয়ে ২০১২ সালের এই দিনে না ফেরার দেশে চলে যান এই কিংবদন্তি।

প্রয়াণ দিবসে সামাজিক মাধ্যমে প্রিয় লেখককে স্মরণ করছেন অনেকে। এছাড়া টেলিভিশন চ্যানেলগুলো তাকে নিয়ে বিশেষ আয়োজনে অনুষ্ঠানমালা সাজিয়েছে।

১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনায় জন্ম নেওয়া আধুনিক কল্পবিজ্ঞান সাহিত্যের পথিকৃৎ হুমায়ূন আহমেদ একাধারে ছিলেন ঔপন্যাসিক, ছোট গল্পকার, নাট্যকার, চলচ্চিত্র পরিচালক ও গীতিকার। তার বাবা শহীদ ফয়জুর রহমান আহমেদ ও মা আয়শা ফয়েজ। তিনি পড়াশোনা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ডাকোটা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে। রসায়ন শাস্ত্রের শিক্ষক হিসেবে দীর্ঘদিন অধ্যাপনা করেছেন ঢাবিতে।

কালজয়ী উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’ ও ‘শঙ্খনীল কারাগার’ এর মধ্য দিয়ে বাংলা সাহিত্যে শক্তিশালী এক কথাসাহিত্যিকের আগমনী জানিয়েছিলেন তিনি। তার প্রকাশিত সাহিত্যকর্ম তিন শতাধিক। গল্প বলার এক নতুন ধারায় তার সব গল্প-উপন্যাসই যেমন জনপ্রিয় তেমনি জনপ্রিয়তা পেয়েছে হিমু, মিসির আলী, বাকের ভাই ও রূপার মতো অসাধারণ সব চরিত্র।

এক সময় সাহিত্যচর্চার পাশাপাশি মনোনিবেশ করেন চলচ্চিত্র ও নাটক নির্মাণে। ‘কোথাও কেউ নেই’, ‘আগুনের পরশমণি’, ‘দুই দুয়ারি’, ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’, ‘আমার আছে জল’, ‘চন্দ্রকথা’, ‘ঘেঁটুপুত্র কমলা’ তার উল্লেখযোগ্য সৃষ্টিকর্ম।

অসামান্য প্রতিভাবান লেখক হুমায়ূন আহমেদের সাফল্যের ঝুলি বিভিন্ন পুরস্কারে সমৃদ্ধ। সেগুলোর মধ্যে বাংলা একাডেমি পুরস্কার, মাইকেল মধুসূদন পুরস্কার, হুমায়ুন কবীর স্মৃতি পুরস্কার, জাতীয় পুরস্কার একুশে পদক উল্লেখযোগ্য।

২০১১ সালে সিঙ্গাপুরে ডাক্তারি পরীক্ষায় হুমায়ূন আহমেদের দেহে ক্যান্সার ধরা পড়ে। অল্প সময়ের মধ্যেই তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকে। কৃত্রিম লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় ২০১২ সালের ১৯ জুলাই নিউইয়র্কের বেলেভ্যু হাসপাতালে ইহলোক ত্যাগ করেন ভিন্নধর্মী সবার প্রিয় কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ।
,মঙ্গলবার ১৯ জুলাই,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

সর্বশেষ আপডেট



» জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে লক্ষ্মীপুরে মেঝো ভাইকে কুপিয়ে হত্যা করল ছোট ভাই

» ডেনমার্ককে ১-০ গোলে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া

» কলাপাড়ায় বিট পুলিশিং উঠান বৈঠক

» কুয়াকাটায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করেন এমপি মহিব

» মাধবদীর আমদিয়ায় দেবরকে ফাঁসিয়ে বিয়ে করলেন আপন ভাবি

» ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে আরও ৪২৬ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি ৪ জনের মৃত্যু

» জাপার চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন নিয়ে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেছে

» বিএনপি কেন তাদের সমাবেশকে ঘিরে ১০ ডিসেম্বর বেছে নিয়েছে,প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের

» উন্নয়নকাজ নির্বিঘ্ন করতে বিমানবন্দর সড়কে ৩ দিন যান চলাচলে বিশেষ নির্দেশনা

» ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত আয়কর রিটার্ন জমা দিতে পারবেন করদাতারা

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নন্দিত কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্রকার হুমায়ূন আহমেদ নেই দশ বছর।




নন্দিত কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্রকার হুমায়ূন আহমেদ নেই দশ বছর।
মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) তার দশম মৃত্যুবার্ষিকী। অসংখ্য ভক্তকে কাঁদিয়ে ২০১২ সালের এই দিনে না ফেরার দেশে চলে যান এই কিংবদন্তি।

প্রয়াণ দিবসে সামাজিক মাধ্যমে প্রিয় লেখককে স্মরণ করছেন অনেকে। এছাড়া টেলিভিশন চ্যানেলগুলো তাকে নিয়ে বিশেষ আয়োজনে অনুষ্ঠানমালা সাজিয়েছে।

১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনায় জন্ম নেওয়া আধুনিক কল্পবিজ্ঞান সাহিত্যের পথিকৃৎ হুমায়ূন আহমেদ একাধারে ছিলেন ঔপন্যাসিক, ছোট গল্পকার, নাট্যকার, চলচ্চিত্র পরিচালক ও গীতিকার। তার বাবা শহীদ ফয়জুর রহমান আহমেদ ও মা আয়শা ফয়েজ। তিনি পড়াশোনা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ডাকোটা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে। রসায়ন শাস্ত্রের শিক্ষক হিসেবে দীর্ঘদিন অধ্যাপনা করেছেন ঢাবিতে।

কালজয়ী উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’ ও ‘শঙ্খনীল কারাগার’ এর মধ্য দিয়ে বাংলা সাহিত্যে শক্তিশালী এক কথাসাহিত্যিকের আগমনী জানিয়েছিলেন তিনি। তার প্রকাশিত সাহিত্যকর্ম তিন শতাধিক। গল্প বলার এক নতুন ধারায় তার সব গল্প-উপন্যাসই যেমন জনপ্রিয় তেমনি জনপ্রিয়তা পেয়েছে হিমু, মিসির আলী, বাকের ভাই ও রূপার মতো অসাধারণ সব চরিত্র।

এক সময় সাহিত্যচর্চার পাশাপাশি মনোনিবেশ করেন চলচ্চিত্র ও নাটক নির্মাণে। ‘কোথাও কেউ নেই’, ‘আগুনের পরশমণি’, ‘দুই দুয়ারি’, ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’, ‘আমার আছে জল’, ‘চন্দ্রকথা’, ‘ঘেঁটুপুত্র কমলা’ তার উল্লেখযোগ্য সৃষ্টিকর্ম।

অসামান্য প্রতিভাবান লেখক হুমায়ূন আহমেদের সাফল্যের ঝুলি বিভিন্ন পুরস্কারে সমৃদ্ধ। সেগুলোর মধ্যে বাংলা একাডেমি পুরস্কার, মাইকেল মধুসূদন পুরস্কার, হুমায়ুন কবীর স্মৃতি পুরস্কার, জাতীয় পুরস্কার একুশে পদক উল্লেখযোগ্য।

২০১১ সালে সিঙ্গাপুরে ডাক্তারি পরীক্ষায় হুমায়ূন আহমেদের দেহে ক্যান্সার ধরা পড়ে। অল্প সময়ের মধ্যেই তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকে। কৃত্রিম লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় ২০১২ সালের ১৯ জুলাই নিউইয়র্কের বেলেভ্যু হাসপাতালে ইহলোক ত্যাগ করেন ভিন্নধর্মী সবার প্রিয় কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ।
,মঙ্গলবার ১৯ জুলাই,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

প্রধান কার্যালয়: গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২ | ব্রাঞ্চ অফিস: ২৪৭ পশ্চিম মনিপুর, ২য় তলা, মিরপুর-২, ঢাকা -১২১৬।

Phone: +8801714043198, Email: hbnews24@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © HBnews24.com