করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলাদেশে

নতুন আক্রান্ত মোট আক্রান্ত সুস্থ মৃত্যু
২৫৯ ২০,০৯,১২৯ ১৯,৫১,৭৩৭ ২৯,৩১৪

বিদেশে লেখাপড়া করে দেশে ফিরে বাংলাদেশে মাদক বিজ্ঞানী হতে চেয়েছিল ওনাইসী সাঈদ

বিদেশে লেখাপড়া করে দেশে ফিরে বাংলাদেশে মাদক বিজ্ঞানী হতে চেয়েছিল এক যুবক। কানাডা- আমেরিকা থেকে নতুন নতুন মাদকের বীজ এনে নিজের ফ্ল্যাটে চাষ করে আসছিলেন ওনাইসী সাঈদ। অভিজাত এলাকায় বিক্রি করতো দামি এসব মাদক। র‍্যাবের অভিযানে সাঈদের বাসা থেকে এক্সট্যাসি, কুশ, হেম্প, মলি, ফেন্টানিলসহ নতুন নতুন মাদক উদ্ধার করা হয়েছে।গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ‘মাদক বিজ্ঞানী’ সাঈদকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। সোমবার (১ আগস্ট) রাতে রাজধানীর গুলশান এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ানবাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান বাহিনীর লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।সংবাদ সম্মেলন থেকে জানা গেছে, দেশের একটি স্বনামধন্য ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে পড়াশোনা শেষ করেন সাইদ। তারপর ব্যাচেলর অব বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন (বিবিএ) করতে চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে। পরবর্তীতে মাস্টার অব বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন (এমবিএ) করেন মালয়েশিয়ায়। দেশে ফিরে প্রথমে বাবার টেক্সটাইল ব্যবসা দেখাশোনা করেন।

বিদেশে পড়া অবস্থায় বিভিন্ন মাদকের সঙ্গে পরিচিত হন সাইদ। বাবার ব্যবসায়ের পাশাপাশি দেশে নতুন ধরণের মাদকের প্রচলন ও বাজার সৃষ্টির পরিকল্পনা করেন তিনি। পরিকল্পনা অনুসারে ২০১৯ সাল থেকে বিভিন্ন দেশ থেকে কুরিয়ারের মাধ্যমে নানা ধরনের মাদক নিয়ে আসতেন। এসব মাদক তিনি সাপ্লাই করতেন দেশের বিভিন্ন অভিজাত পার্টিতে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সাইদ নিজে শুধুমাত্র ধূমপান ও মদে আসক্ত। কিন্তু গবেষণা করতেন বিভিন্ন নতুন প্রজাতির মাদক নিয়ে। নিজের বাসায় মাদক উৎপাদনের প্ল্যান্ট তৈরি করেন। তার ইচ্ছা ছিল নিত্যনতুন মাদক নিয়ে গবেষণার মাধ্যমে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করা। হতে চেয়েছিলেন মাদক বিজ্ঞানী হিসেবে। কীভাবে নতুন ধরনের মাদক সেবন করা যায়, তার জিনিসপত্র কী হবে সেটিও পরিকল্পনা করতেন সাইদ।

সোমবার রাতের অভিযানে সাইদের গুলশানের বাসা থেকে ১০১ গ্রাম কুশ, ৬ গ্রাম হেম্প, ০.০৫ গ্রাম মলি, ১ গ্রাম ফেন্টানল, ১৮ গ্রাম কোকেন, ১২৩ পিচ এক্সট্যাসি, ২৮ পিচ এডারল ট্যাবলেট জব্দ করে র‌্যাব। পাওয়া যায় ২ কোটি ৪০ লাখ টাকা ও অন্তত ৫০ লাখ টাকার মার্কিন ডলার।সাইদের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে তার মোহাম্মদপুরের একটি ফ্ল্যাটেও অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় সেখান থেকে তাপ নিয়ন্ত্রণ গ্রো-টেন্টের মাধ্যমে বিদেশি প্রজাতির কুশ তৈরির প্ল্যান্ট ও সেটআপ জব্দ করা হয়। বাণিজ্যিকভাবে বাজারজাতকরণের উদ্দেশ্যে প্ল্যান্টটি স্থাপন করেছিলেন তিনি।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, আটক ওনাইসী সাঈদ ২০১৪ সাল থেকে বাংলাদেশে অবস্থান করছিলেন। কিন্তু বিদেশে তার নিয়মিত যাতায়াত ছিল। বাংলাদেশে জনপ্রিয়তা বাড়াতে নতুন ধরনের মাদক নিয়ে আসতেন। বিভিন্ন পার্টিতে ও নিজ সার্কেলে এসব মাদক ছড়িয়ে দিতেন তিনি।

আমরা ফয়সাল নামে একজনের নাম জানতে পেরেছি। তিনি এলিফ্যান্ট রোডের বাসিন্দা। ২০১৬ সাল থেকে তিনি বিদেশে অবস্থান করছেন। প্রথমে থাইল্যান্ডে বসবাস করলেও বর্তমানে কানাডায় অবস্থান করছেন। তিনিই মূলত সাইদকে বিভিন্ন ধরণের অপ্রচলিত মাদক সরবরাহ করে আসছেন।অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, সাঈদের এমন অভিনব মাদক কারবার সর্ম্পকে কিছুই জানতো না তার পরিবার। এক সময় বাবার গার্মেন্টস ব্যবসা ছেড়ে মাদক ব্যবসা শুরু করেন সাঈদ। র‍্যাব জানিয়েছে, সাঈদের কিছু সহযোগীর তথ্যও পাওয়া গেছে।
ঢাকা,মঙ্গলবার ০২ আগষ্ট,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

সর্বশেষ আপডেট



» নতুন করে আরও ২৫৯ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত, ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

» কলাপাড়ায় জাতীয় শোক দিবস পালিত।। দুস্থ, অসহায় প্রতিবন্ধীদের মাঝে খাবার বিতরণ

» আমতলীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

» রাজধানীর উত্তরায় ক্রেন থেকে গার্ডার পড়ে প্রাইভেটকারে থাকা ৩ জন যাত্রী নিহত

» রাজধানীর চকবাজারে পলিথিন কারখানায় লাগা আগুনে ছয়জনের মরদেহ উদ্ধার

» রাজধানীর চকবাজারে পলিথিন কারখানায় লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে

» জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাড্ডা ২১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের খাবার বিতরন

» মাধবদী তে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তমসাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত।

» ঢাকা -১৬ আসনসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে অসহায় ও সুবিধা বঞ্চিত মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ

» রাজধানীর চকবাজারে পলিথিন কারখানায় আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

বার্তা সম্পাদক: কামাল হোসেন খান

 

সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ, ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদেশে লেখাপড়া করে দেশে ফিরে বাংলাদেশে মাদক বিজ্ঞানী হতে চেয়েছিল ওনাইসী সাঈদ




বিদেশে লেখাপড়া করে দেশে ফিরে বাংলাদেশে মাদক বিজ্ঞানী হতে চেয়েছিল এক যুবক। কানাডা- আমেরিকা থেকে নতুন নতুন মাদকের বীজ এনে নিজের ফ্ল্যাটে চাষ করে আসছিলেন ওনাইসী সাঈদ। অভিজাত এলাকায় বিক্রি করতো দামি এসব মাদক। র‍্যাবের অভিযানে সাঈদের বাসা থেকে এক্সট্যাসি, কুশ, হেম্প, মলি, ফেন্টানিলসহ নতুন নতুন মাদক উদ্ধার করা হয়েছে।গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ‘মাদক বিজ্ঞানী’ সাঈদকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। সোমবার (১ আগস্ট) রাতে রাজধানীর গুলশান এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ানবাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান বাহিনীর লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।সংবাদ সম্মেলন থেকে জানা গেছে, দেশের একটি স্বনামধন্য ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে পড়াশোনা শেষ করেন সাইদ। তারপর ব্যাচেলর অব বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন (বিবিএ) করতে চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে। পরবর্তীতে মাস্টার অব বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন (এমবিএ) করেন মালয়েশিয়ায়। দেশে ফিরে প্রথমে বাবার টেক্সটাইল ব্যবসা দেখাশোনা করেন।

বিদেশে পড়া অবস্থায় বিভিন্ন মাদকের সঙ্গে পরিচিত হন সাইদ। বাবার ব্যবসায়ের পাশাপাশি দেশে নতুন ধরণের মাদকের প্রচলন ও বাজার সৃষ্টির পরিকল্পনা করেন তিনি। পরিকল্পনা অনুসারে ২০১৯ সাল থেকে বিভিন্ন দেশ থেকে কুরিয়ারের মাধ্যমে নানা ধরনের মাদক নিয়ে আসতেন। এসব মাদক তিনি সাপ্লাই করতেন দেশের বিভিন্ন অভিজাত পার্টিতে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সাইদ নিজে শুধুমাত্র ধূমপান ও মদে আসক্ত। কিন্তু গবেষণা করতেন বিভিন্ন নতুন প্রজাতির মাদক নিয়ে। নিজের বাসায় মাদক উৎপাদনের প্ল্যান্ট তৈরি করেন। তার ইচ্ছা ছিল নিত্যনতুন মাদক নিয়ে গবেষণার মাধ্যমে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করা। হতে চেয়েছিলেন মাদক বিজ্ঞানী হিসেবে। কীভাবে নতুন ধরনের মাদক সেবন করা যায়, তার জিনিসপত্র কী হবে সেটিও পরিকল্পনা করতেন সাইদ।

সোমবার রাতের অভিযানে সাইদের গুলশানের বাসা থেকে ১০১ গ্রাম কুশ, ৬ গ্রাম হেম্প, ০.০৫ গ্রাম মলি, ১ গ্রাম ফেন্টানল, ১৮ গ্রাম কোকেন, ১২৩ পিচ এক্সট্যাসি, ২৮ পিচ এডারল ট্যাবলেট জব্দ করে র‌্যাব। পাওয়া যায় ২ কোটি ৪০ লাখ টাকা ও অন্তত ৫০ লাখ টাকার মার্কিন ডলার।সাইদের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে তার মোহাম্মদপুরের একটি ফ্ল্যাটেও অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় সেখান থেকে তাপ নিয়ন্ত্রণ গ্রো-টেন্টের মাধ্যমে বিদেশি প্রজাতির কুশ তৈরির প্ল্যান্ট ও সেটআপ জব্দ করা হয়। বাণিজ্যিকভাবে বাজারজাতকরণের উদ্দেশ্যে প্ল্যান্টটি স্থাপন করেছিলেন তিনি।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, আটক ওনাইসী সাঈদ ২০১৪ সাল থেকে বাংলাদেশে অবস্থান করছিলেন। কিন্তু বিদেশে তার নিয়মিত যাতায়াত ছিল। বাংলাদেশে জনপ্রিয়তা বাড়াতে নতুন ধরনের মাদক নিয়ে আসতেন। বিভিন্ন পার্টিতে ও নিজ সার্কেলে এসব মাদক ছড়িয়ে দিতেন তিনি।

আমরা ফয়সাল নামে একজনের নাম জানতে পেরেছি। তিনি এলিফ্যান্ট রোডের বাসিন্দা। ২০১৬ সাল থেকে তিনি বিদেশে অবস্থান করছেন। প্রথমে থাইল্যান্ডে বসবাস করলেও বর্তমানে কানাডায় অবস্থান করছেন। তিনিই মূলত সাইদকে বিভিন্ন ধরণের অপ্রচলিত মাদক সরবরাহ করে আসছেন।অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, সাঈদের এমন অভিনব মাদক কারবার সর্ম্পকে কিছুই জানতো না তার পরিবার। এক সময় বাবার গার্মেন্টস ব্যবসা ছেড়ে মাদক ব্যবসা শুরু করেন সাঈদ। র‍্যাব জানিয়েছে, সাঈদের কিছু সহযোগীর তথ্যও পাওয়া গেছে।
ঢাকা,মঙ্গলবার ০২ আগষ্ট,এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

বার্তা সম্পাদক: কামাল হোসেন খান

 

সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

প্রধান কার্যালয়: গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২ | ব্রাঞ্চ অফিস: ২৪৭ পশ্চিম মনিপুর, ২য় তলা, মিরপুর-২, ঢাকা -১২১৬।

Phone: +8801714043198, Email: hbnews24@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © HBnews24.com