করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলাদেশে

নতুন আক্রান্ত মোট আক্রান্ত সুস্থ মৃত্যু
১৬ ২০,৩৭,৫৩২ ১৯,৯২,৪৪৭ ২৯,৪৪২

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৬ ভুয়া ডিবিকে আটক

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৬ ভুয়া ডিবিকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১০)।মঙ্গলবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ানবাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-১০ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন।আটকরা হলেন- সবুজ খাঁন (৪৬), মিন্টু পাটোয়ারী (৪০), রাসেল মোল্লা (৪৫), ইকবাল মিয়া (৩৯), মনিরুল ইসলাম (৪০) ও খোকন মিয়া (৪৫)।

তাদের কাছ থেকে ৩টি ভুয়া ডিবি পুলিশের জ্যাকেট, ২টি ওয়াকিটকি সেট, ১টি হাতকড়া, ১টি খেলনা পিস্তল, ১টি হ্যান্ড ফ্লাশ লাইট, ১টি পুলিশ মনোগ্রাম সম্বলিত স্টিকার, ৭টি মোবাইল ফোন ও নগদ ১০ হাজার ৯৫০ টাকা জব্দ করা হয়েছে।আটকদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে তিনি জানান, তারা একটি সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্রের সদস্য। নিজেদের ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, গুলিস্থান, মতিঝিল, বাইতুল মোকারমসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি করে আসছিলো। ব্যাংক থেকে মোটা অংকের টাকা উত্তোলনকারী ব্যক্তি ও বিভিন্ন প্রয়োজনে টাকা নিয়ে চলাচলকারী ব্যক্তিদের টার্গেট করছিলো তারা।

তিনি বলেন, আটক সবুজ এ চক্রের মূলহোতা। এ কাজের জন্য গ্রেফতার রাসেল ব্যাংক ও জনবহুল এলাকায় অবস্থান করে ভিকটিম নির্দিষ্ট করে ভিকটিমকে অনুসরন করতেন এবং ভিকটিমের বর্ণনা ও অবস্থান সম্পর্কে তাদের সমন্বয়ক মিন্টুকে জানাতেন।

পূর্ব-পরিকল্পনা অনুযায়ী সহযোগীরা মিলে ডিবি পুলিশের জ্যাকেট সদৃশ্য পোশাক পরা অবস্থায়, হাতে ওয়াকিটকি সেট ও হ্যান্ডকাপ নিয়ে ভাড়া করা মাইক্রোবাসযোগে ভিকটিমের কাছে উপস্থিত হতো। ভিকটিম কিছু বুঝে উঠার আগেই তাকে মাদক কারবারি বা মামলার আসামিসহ বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে তাদের সঙ্গে থাকা মাইক্রোবাসে উঠিয়ে মারধর করতো। এরমধ্যে দ্রুত স্থান ত্যাগ করে অন্য স্থানে চলে যেত তারা। পরবর্তীতে ভিকটিমের কাছে থাকা টাকা, মোবাইল ও স্বর্ণালংকারসহ মূল্যবান সব জিনিসপত্র নিয়ে ভিকটিমকে সুবিধাজনক স্থানে মাইক্রোবাস থেকে ফেলে দিয়ে পালিয়ে যেত।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, মূলহোতা সবুজ ডাকাতির জন্য প্রয়োজনীয় ডিবি পুলিশের জ্যাকেট, ওয়াকিটকি, হাতকড়া, খেলনা পিস্তল সরবারহ করতেন। মিন্টু পাটোয়ারী পেশায় একজন ছদ্মবেশী সিএনজি ও অটো-রিক্সাচালক। এই পেশার আড়ালে তিনি বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে ডাকাতির জন্য তথ্য সংগ্রহ করতেন। রাসেল মোল্লা পেশায় একজন গাড়িচালক। তিনি তার এই পেশার আড়ালে ডাকাত দলের গোয়েন্দা হিসেবে কাজ করতেন।

আটক ইকবাল মিয়া ডাকাতির জন্য সবুজের অন্যতম সহযোগী হিসেবে কাজ করতেন। তিনি প্রায় ৩ বছর ধরে এই দলের সঙ্গে যুক্ত। মনিরুল ইসলাম (৪০) পেশায় একজন দর্জি। গত ১ বছর ধরে দর্জি পেশা ছেড়ে ডাকাত দলের সঙ্গে যুক্ত হয়।
ঢাকা,মঙ্গলবার ১১ অক্টোবর এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

সর্বশেষ আপডেট



» পুলিশ কর্মকর্তার গুলিতে আহত ভারতের ওড়িশা রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী মারা গেছেন

» নতুন করে আরও ১৬ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত,কারও মৃত্যু হয়নি।

» বেসরকারি হাসপাতালগুলোর মান অনুযায়ী ফি নির্ধারণ করে দেওয়া হবে।

» এ বাংলার মানুষের কথা ভেবেই দেশে এসেছি, পালাতে নয়। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে দেশের মানুষ কিছু পায়

» ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে: আইনমন্ত্রী

» চরদিঘলদীতে ঘুমন্ত গ্রামবাসীর উপর দেলোয়ার ও ইউনুছ বাহিনী টেটা হামলা করতে গিয়ে গনপিটুনীর শিকার

» এক সময়ের অবহেলিত দক্ষিণাঞ্চল এখন উন্নয়নের রোল মডেল… এমপি মহিব

» নতুন করে আরও ১০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত,একজনের মৃত্যু হয়েছে।

» সব দল পূ্র্ণশক্তি নিয়েই নির্বাচনী মাঠে নামুক; আওয়ামী লীগ তাদের সঙ্গে খেলেই জিততে চায়

» হুজিবি’র প্রধান সমন্বয়কসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে সিটিটিসি

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 

 

 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ সোমবার, ৩০ জানুয়ারি ২০২৩ খ্রিষ্টাব্দ, ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৬ ভুয়া ডিবিকে আটক




রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৬ ভুয়া ডিবিকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১০)।মঙ্গলবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ানবাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-১০ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন।আটকরা হলেন- সবুজ খাঁন (৪৬), মিন্টু পাটোয়ারী (৪০), রাসেল মোল্লা (৪৫), ইকবাল মিয়া (৩৯), মনিরুল ইসলাম (৪০) ও খোকন মিয়া (৪৫)।

তাদের কাছ থেকে ৩টি ভুয়া ডিবি পুলিশের জ্যাকেট, ২টি ওয়াকিটকি সেট, ১টি হাতকড়া, ১টি খেলনা পিস্তল, ১টি হ্যান্ড ফ্লাশ লাইট, ১টি পুলিশ মনোগ্রাম সম্বলিত স্টিকার, ৭টি মোবাইল ফোন ও নগদ ১০ হাজার ৯৫০ টাকা জব্দ করা হয়েছে।আটকদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে তিনি জানান, তারা একটি সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্রের সদস্য। নিজেদের ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, গুলিস্থান, মতিঝিল, বাইতুল মোকারমসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি করে আসছিলো। ব্যাংক থেকে মোটা অংকের টাকা উত্তোলনকারী ব্যক্তি ও বিভিন্ন প্রয়োজনে টাকা নিয়ে চলাচলকারী ব্যক্তিদের টার্গেট করছিলো তারা।

তিনি বলেন, আটক সবুজ এ চক্রের মূলহোতা। এ কাজের জন্য গ্রেফতার রাসেল ব্যাংক ও জনবহুল এলাকায় অবস্থান করে ভিকটিম নির্দিষ্ট করে ভিকটিমকে অনুসরন করতেন এবং ভিকটিমের বর্ণনা ও অবস্থান সম্পর্কে তাদের সমন্বয়ক মিন্টুকে জানাতেন।

পূর্ব-পরিকল্পনা অনুযায়ী সহযোগীরা মিলে ডিবি পুলিশের জ্যাকেট সদৃশ্য পোশাক পরা অবস্থায়, হাতে ওয়াকিটকি সেট ও হ্যান্ডকাপ নিয়ে ভাড়া করা মাইক্রোবাসযোগে ভিকটিমের কাছে উপস্থিত হতো। ভিকটিম কিছু বুঝে উঠার আগেই তাকে মাদক কারবারি বা মামলার আসামিসহ বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে তাদের সঙ্গে থাকা মাইক্রোবাসে উঠিয়ে মারধর করতো। এরমধ্যে দ্রুত স্থান ত্যাগ করে অন্য স্থানে চলে যেত তারা। পরবর্তীতে ভিকটিমের কাছে থাকা টাকা, মোবাইল ও স্বর্ণালংকারসহ মূল্যবান সব জিনিসপত্র নিয়ে ভিকটিমকে সুবিধাজনক স্থানে মাইক্রোবাস থেকে ফেলে দিয়ে পালিয়ে যেত।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, মূলহোতা সবুজ ডাকাতির জন্য প্রয়োজনীয় ডিবি পুলিশের জ্যাকেট, ওয়াকিটকি, হাতকড়া, খেলনা পিস্তল সরবারহ করতেন। মিন্টু পাটোয়ারী পেশায় একজন ছদ্মবেশী সিএনজি ও অটো-রিক্সাচালক। এই পেশার আড়ালে তিনি বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে ডাকাতির জন্য তথ্য সংগ্রহ করতেন। রাসেল মোল্লা পেশায় একজন গাড়িচালক। তিনি তার এই পেশার আড়ালে ডাকাত দলের গোয়েন্দা হিসেবে কাজ করতেন।

আটক ইকবাল মিয়া ডাকাতির জন্য সবুজের অন্যতম সহযোগী হিসেবে কাজ করতেন। তিনি প্রায় ৩ বছর ধরে এই দলের সঙ্গে যুক্ত। মনিরুল ইসলাম (৪০) পেশায় একজন দর্জি। গত ১ বছর ধরে দর্জি পেশা ছেড়ে ডাকাত দলের সঙ্গে যুক্ত হয়।
ঢাকা,মঙ্গলবার ১১ অক্টোবর এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

প্রধান কার্যালয়: গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা লিংকরোড ঢাকা-১২১২ | ব্রাঞ্চ অফিস: ২৪৭ পশ্চিম মনিপুর, ২য় তলা, মিরপুর-২, ঢাকা -১২১৬।

Phone: +8801714043198, Email: hbnews24@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © HBnews24.com